নতুন খবরভারতবর্ষ

পেট্রোল-ডিজেল দূরের কথা, লাগবে না ব্যাটারিও! ভারতে লঞ্চ হল সবথেকে সস্তা স্বদেশী ই-স্কুটার

নয়া দিল্লিঃ চলতি মাসের শুরুতে বেঙ্গালুরুর একটি নতুন স্টার্টআপ “বাউন্স”, তাদের প্রথম বৈদ্যুতিক স্কুটার Bounce Infinity E1 লঞ্চ করেছে। এটি ভারতের প্রথম ই-স্কুটার, যা ব্যাটারি ছাড়াই আসছে এবং এটিকে চার্জ করারও প্রয়োজন নেই। সংস্থাটি এই ই-স্কুটারটি চালু করেছে “ব্যাটারি অ্যাজ এ সার্ভিস” বিকল্পের সাথে।

এটি ৪৫,০৯৯ টাকায় (দিল্লি এক্স-শোরুম) কেনা যাবে। পাশাপাশি, গ্রাহকরা মাত্র ৪৯৯ টাকার (সম্পূর্ণ ফেরতযোগ্য) প্রাথমিক পেমেন্টের মাধ্যমে এটি প্রি-বুক করতে পারেন। ডিলারশিপ নেটওয়ার্ক এবং এটির অনলাইন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে আগামী মার্চ মাসের শেষের দিকে ডেলিভারি পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, “ব্যাটারি অ্যাজ এ সার্ভিস” বিষয়টি ঠিক কি এই নিয়ে গ্রাহকদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে। এই প্রসঙ্গে সংস্থার সিইও এবং সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিবেকানন্দ হালকেরে জানিয়েছেন যে, “সম্প্রতি লঞ্চ করা Bounce Infinity E1, ভারতীয় বাজারে প্রথম ই-স্কুটার, যেটি ‘ব্যাটারি অ্যাজ এ সার্ভিস’ বিকল্পের সাথে আসছে। ব্যাটারি ছাড়া এই স্কুটারের চার্জিং নিয়ে গ্রাহকদের চিন্তা করতে হবে না। এই জন্য কোম্পানিটি তার পক্ষ থেকে ব্যাটারি অদলবদল করার সুবিধা দিচ্ছে। যখনই গ্রাহক বাউন্সের সোয়াপিং নেটওয়ার্ক থেকে একটি সম্পূর্ণ চার্জযুক্ত ব্যাটারির সাথে একটি খালি ব্যাটারি অদলবদল করেন, তাকে অর্থ প্রদান করতে হবে। এটি প্রচলিত পেট্রোল স্কুটারের তুলনায় ৪০ শতাংশ পর্যন্ত খরচ কমায়।”

স্টার্টআপটি দাবি করেছে যে, দিল্লি-এনসিআর এবং বেঙ্গালুরুর মতো প্রধান ভারতীয় শহরগুলিতে তাদের ব্যাটারি-সোয়াপিং স্টেশন নেটওয়ার্কের সাথে প্রায় ২০০ টি স্টেশন সংযুক্ত রয়েছে। এছাড়াও, তারা এখনও পর্যন্ত ৫ লক্ষেরও বেশি ব্যাটারি আদানপ্রদান করে ২০ মিলিয়ন কিলোমিটারেরও বেশি যাত্রা সম্পন্ন করেছে।

বিবেকানন্দ আরও জানিয়েছেন যে, “বাউন্স আগামী ১২ মাসে ই-স্কুটার তৈরি করতে এবং ব্যাটারি অদলবদল পরিকাঠামো প্রসারিত করতে ১০০ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ করতে প্রস্তুত৷ আমরা মূল অংশীদারদের সাথে একটি বিস্তৃত ব্যাটারি-অদলবদল নেটওয়ার্ক তৈরি করছি। এটি খুচরো গ্রাহক এবং ব্যবসায়িক ক্ষেত্র উভয়ের জন্যই কাজ করবে।”

ইতিমধ্যেই সংস্থাটি একাধিক ব্র্যান্ডের সাথে অংশীদারিত্ব করেছে। স্টার্টআপটির লক্ষ্য সারা দেশে “ইলেকট্রিক মোবিলিটি ইকোসিস্টেম” শক্তিশালী করতে ১০ টি শহরে ৩,৫০০ টিরও বেশি ব্যাটারি সোয়াপিং স্টেশন স্থাপন করা।

এক্ষেত্রে বিবেকানন্দ বলেছেন, “আমাদের লক্ষ্য হল ভারতের পরিবেশকে পরিষ্কার রাখতে সহযোগিতা করা এবং বিশ্বের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে বেশি ‘ব্যাটারি সোয়াপিং প্ল্যাটফর্ম’ তৈরি করা। যাতে আমরা আমাদের গ্রাহকদের জন্য প্রতি কিলোমিটারে একটি সোয়াপিং সুবিধা প্রদান করতে পারি।”

তবে, আপনি চাইলে ব্যাটারি সহ Bounce Infinity E1 ও কিনতে পারেন। ব্যাটারি এবং চার্জার সহ এই স্কুটারটির দাম পড়বে ৬৮,৯৯৯ টাকা (এক্স-শোরুম)। আপনি আপনার বাড়িতে বা অফিসে, যেখানে সুবিধা সেখানে এটি চার্জ করতে পারেন। এই স্কুটারটিতে একটি ২ kWh এর অপসারণযোগ্য লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি থাকে, যা একবার চার্জে ৮৫ কিলোমিটার পর্যন্ত যেতে পারে। এই ব্যাটারিটি যে কোনো নিয়মিত পাওয়ার সকেট ব্যবহার করে সম্পূর্ণ চার্জ হতে প্রায় ৪ থেকে ৫ ঘন্টা সময় নেয়।

পাশাপাশি, এই স্কুটারটির সর্বোচ্চ গতি ৬৫ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা। গ্রাহকরা দুটি রাইডিং মোডে এই ই-স্কুটারটি চালাতে পারবেন, পাওয়ার এবং ইকো মোড। স্কুটারটিতে ৩ বছরের জন্য ৫০,০০০ কিলোমিটার পর্যন্ত যাতায়াতে ওয়ারেন্টি থাকে।

Bounce Infinity E1 স্কুটারে কিছু অত্যাধুনিক ফিচার্সও রয়েছে। স্কুটারের ড্র্যাগ মোড, পাংচারের ক্ষেত্রে স্কুটারটিকে ধীরে ধীরে চলতে সাহায্য করে। পাশাপাশি, ক্রুজ কন্ট্রোল, স্কুটারটিকে একটি স্থির গতিতে ধরে রাখতে সাহায্য করে। এছাড়াও, Anti Theft, এই বিশেষ ফিচারটি চুরির হাত থেকে রক্ষা করবে স্কুটারটিকে। আরও অনেক বিভিন্ন ধরণের ফিচার্স রয়েছে স্কুটারে যা মোবাইল থেকেই ট্র্যাক করতে পারবেন গ্রাহকেরা।

Related Articles

Back to top button