নতুন খবরভারতবর্ষ

ব্যাঙ্ক দেউলিয়া হলে চিন্তা নেই, দেশবাসীকে স্বস্তি দিয়ে বড় ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

নয়া দিল্লিঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) রবিবার দিল্লির বিজ্ঞান ভবনে ‘আমানতকারীর প্রথম গ্যারান্টিড টাইম-বাউন্ড ডিপোজিট ইন্স্যুরেন্স পেমেন্ট আপ টু ফাইভ লাখ’ বিষয়ক অনুষ্ঠানে ভাষণ দিয়েছেন। সমস্ত ধরণের আমানত যেমন সেভিংস, ফিক্সড, কারেন্ট এবং ফিক্সড ডিপোজিট ইত্যাদি আমানত বীমার (Deposit Insurance) পরিধির অধীনে ভারতে কর্মরত সমস্ত বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলিতে (Commercial Banks) অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছেন যে, আজ দেশের জন্য, ব্যাঙ্কিং সেক্টরের জন্য এবং দেশের কোটি কোটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টধারীদের জন্য একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন। যুগ যুগ ধরে চলে আসা একটি বড় সমস্যা কিভাবে সমাধান করা হয়েছে, আজ তার সাক্ষী। আজকের এই আয়োজনের যেই নাম দেওয়া হয়েছে, তাতে আমানতকারী প্রথম ভাবনাকে আরও সটীক করে তুলেছে। গত কয়েক দিনে এক লাখের বেশি আমানতকারী তাদের বছরের পর বছর আটকে থাকা টাকা ফেরত পেয়েছেন। এই পরিমাণ 1300 কোটি টাকার বেশি।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, যেকোনও দেশ কেবল সময়মতো সমাধানের মাধ্যমে সমস্যাগুলিকে আরও খারাপ হওয়া থেকে বাঁচাতে পারে, আর বছরের পর বছর ধরে সমস্যাগুলি এড়ানোর প্রবণতা দেখা যায়। আজকের নতুন ভারত সমস্যা সমাধানের উপর জোর দেয়, আজ ভারত সমস্যা এড়িয়ে যায় না। আগে ব্যাঙ্কে আটকে থাকা নিজের টাকা পেতে বছরের পর বছর লেগে যেত। আমাদের নিম্ন মধ্যবিত্ত, মধ্যবিত্ত ও দরিদ্ররা এই সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। এই অবস্থার পরিবর্তনের জন্য আমাদের সরকার অত্যন্ত সংবেদনশীলভাবে পরিবর্তন, সংস্কার করেছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে ব্যাংক আমানতকারীদের জন্য বীমা ব্যবস্থা ষাটের দশকে তৈরি হয়েছিল। আগে ব্যাঙ্কে জমার পরিমাণ শুধুমাত্র 50,000 টাকা পর্যন্ত গ্যারান্টি নিশ্চিত ছিল, তারপর তা বাড়িয়ে 1 লাখ টাকা করা হয়েছে। আমরা এই পরিমাণ 1 লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে 5 লক্ষ টাকা করেছি। আইন সংশোধন করে আরেকটি সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে। আগে যেখানে রিফান্ডের কোনো সময়সীমা ছিল না, এখন আমাদের সরকার 90 দিনের মধ্যে অর্থাৎ 3 মাসের মধ্যে এটি বাধ্যতামূলক করেছে। অর্থাৎ, ব্যাঙ্ক ডুবে গেলেও আমানতকারীরা তাদের টাকা ৯০ দিনের মধ্যে ফেরত পাবেন।

বলে দিই যে, রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে পরিচালিত রাজ্য-কেন্দ্রীয় এবং প্রাথমিক সমবায় ব্যাঙ্কগুলিকেও এর আওতায় রাখা হয়েছে। এই সংস্কারের অধীনে, ব্যাঙ্ক জমার বীমা কভার 1 লক্ষ টাকা থেকে বাড়িয়ে 5 লক্ষ টাকা করা হয়েছে। আমানতকারী প্রতি 5 লক্ষ টাকার আমানত বীমা কভারেজের উপর ভিত্তি করে প্রতি ব্যাঙ্কে গত আর্থিক বছরের শেষ পর্যন্ত সম্পূর্ণ সুরক্ষিত অ্যাকাউন্টের সংখ্যা 80 শতাংশের আন্তর্জাতিক মানের বিপরীতে মোট অ্যাকাউন্টের 98.1 শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

Related Articles

Back to top button