নতুন খবরভারতবর্ষ

নালন্দায় দোকানে গেরুয়া পতাকা লাগানোয় দোকানদারদের বিরুদ্ধে হল মামলা দায়ের!

‘গর্বের সাথে বলো আমি হিন্দু’ – এই উক্তি দিয়েছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ। স্বামী বিবেকানন্দ মনে করতেন হিন্দু হওয়া গর্বের বিষয় এবং সেটাকে প্ৰকাশ করা উচিত। তবে বর্তমান সময়ে স্বামী বিবেকানন্দ এমন মন্তব্য করলে সম্ভবত গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার হতেন। কারন ধৰ্মনিরপেক্ষতার আড়ালে দেশজুড়ে যা শুরু হয়েছে তা অত্যন্ত লজ্জাজনক।

এখন গর্বের সাথে হিন্দু বলা তো দূর কেও গেরুয়া পতাকা লাগলে তার উপর মামলা দায়ের করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গতকাল ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুর থেকে অদ্ভুত খবর এসেছিল, যেখানে দোকানের নাম হিন্দু ফল দোকান রাখার জন্য হিন্দু ফল বিক্রেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছিল।

এখন বিহার থেকে এমন খবর আসছে যা আরো দুঃখজনক। আসলে বিহারের নালন্দা জেলায় কিছু দোকানদারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে কারণ তারা দোকানে গেরুয়া পতাকা লাগিয়ে রেখেছিল।

নীতিশ কুমারের প্রশাসন কিছু হিন্দু দোকানদারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। সকলের বিরুদ্ধে IPC ধারা ২৯৫ লাগানো রয়েছে। এর অর্থ অভিযুক্তরা অন্যদের ধার্মিক আস্থাকে আহত করেছে। অবশ্য নিজের দোকানে ঠাকুরের ফটো রাখলে, গেরুয়া পতাকা রাখলে কিভাবে অন্য ধর্মের আস্থা আহত হয় সেটা চিন্তার বিষয়।

৫ জন হিন্দুকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সকলের বিরুদ্ধে IPC ধারা ১৪৭, ধারা ১৪৯,১৮৮,১৫৩ ও ২৯৫ লাগানো হয়েছে। অর্থাৎ অভিযোগ যে এনারা ধার্মিক আতঙ্কবাদ ছড়াচ্ছিলেন। নিজের দোকানে গেরুয়া পতাকা লাগানো কিভাবে ধার্মিক আতঙ্কবাদ ছড়ানো হয়ে যায় তা নিয়ে অবশ্য অনেকে প্রশ্নঃ তুলেছেন।

জানিয়ে দি, সংবিধান অনুযায়ী দেশের সমস্ত মানুষ ধার্মিক আস্থা পালনে একবারে স্বাধীন। কিন্তু বিহারে ধৰ্মনিরপেক্ষতার নামে যেটা ঘটছে তাতে হিন্দুদেরকে ধর্মের প্রতীক ব্যবহারে আটকানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

Back to top button
Close