Press "Enter" to skip to content

CAB পাশের পর আনন্দে মাতলো পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু শরনার্থীরা! বললো ভিক্ষা করতে হলেও ভারতে আমরা খুশি।

শেয়ার করুন -

আজ রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব সংশোধন বিল পাশ হয়েছে। বিলের পক্ষে ১২৫ এবং বিলের বিপক্ষে ৯২ টি ভোট পড়েছে। খবর সামনে আসার পর দিল্লীতে বসবাসকারী হিন্দু শরনার্থীরা আনন্দ উৎসবে মেতে উঠেছে। দিল্লিতে বাজি ফাটিয়ে শরণার্থীরা তাদের খুশি ব্যাক্ত করেছে। এই লোকদের মধ্যে গুলশার নামের এক ব্যাক্তি রয়েছেন। শরণার্থী হওয়ায় উনাকে বহু সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছিল। গুলশার তার তিন সন্তানের সাথে চলতি বছরের ১৪ই মে ভারতে এসেছিলেন। এখানে এসে, তিনি তার বাচ্চাদের শিক্ষার অধিকার পাওয়ার জন্য একটি বিচারিক লড়াই করেছিলেন এবং শেষ পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অশোক আগরওয়ালের সহায়তায় তাদের স্কুলে ভর্তি করতে সফল হয়েছেন। এই কয়েক মাস পার হওয়ার পরই মোদী সরকার এই বিলটি (নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল) প্রবর্তন করেছিলেন যেটা তাঁর জীবনে আরও একটি উপহার স্বরূপ ।

এই উপলক্ষে গুলসার তার প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। মোদী সরকারের প্রচেষ্টার মধ্য দিয়ে তিনি কীভাবে দ্বিতীয় উপহার নিয়ে তার প্রতিক্রিয়া কী এবং এই মুহুর্তে তিনি কেমন অনুভব করছেন তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। প্রশ্নটি শুনে গুলশার খুব আবেগময় হয়ে গেছিলেন এবং পুরো বিষয়টি নিয়ে কথা বলার সময় তাঁর কথায় উদ্দীপনা, ভারতের প্রতি ভালবাসা, বর্তমান সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ পাচ্ছিল। গুলসেরের সাথে কথা বলার অংশ:
প্রশ্ন- নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলটি পাস হওয়ার পরে, পাকিস্তান, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তান থেকে আসা হিন্দুরা নাগরিকত্ব পাবে… বাচ্চাদের ভর্তির পরে এখন আবার এই সংবাদটি শুনে কেমন অনুভূতি হচ্ছে?

উত্তর: আমর খুব ভাল বোধ হচ্ছে। আমি খুব খুশি। মোদী সরকার আমাদের জন্য খুব ভাল কাজ করেছে। এবার আমাদের বাচ্চাদের একটা ভালো ভবিষ্যত হবে। আমরা আমাদের ধর্মকে বাঁচাতে পাকিস্তান থেকে এখানে এসেছি। আমরা যদি এখন অধিকার পাই তবে প্রতিবাদ করার প্রশ্নই আসে না। সরকার আমাদের অধিকার দিচ্ছে। আমরা খুব খুশি… আমরা কোথায় আর পর। পাকিস্তান তো আগে ভারতেরই অংশ ছিল। তবে এখন যদি আমাদের বোন ও বাচ্চাদের পাকিস্তানে নির্যাতন করা হয় তবে আমরা কোথায় যাব! আমরা হিন্দুদের দেশে আসব তাই নয় কি?

প্রশ্ন- পাকিস্তান থেকে ভারতে আসার পর প্রত্যাশা কী ছিল? কি মনে হয়েছিল যে ভারত গ্রহণ করবে কি না ?
উত্তর- হ্যাঁ আমরা ভেবেইছিলাম যে ভারত আমাদের গ্রহণ করবে। মোদী সরকার যে এই প্রস্তাব নিয়ে এসেছে এই বিষয়টিকে নিয়ে আমরা খুব খুব খুশি। আমরা তাকে অনেক ধন্যবাদ জানাই যে তিনি আমাদের অধিকার দিচ্ছেন। আমরা এখানে সুখে থাকতে চাই, সুখে থাকতে চাই। আমাদের শিশুরা এখানে খুশি। আমাদের সাথে কোনও বৈষম্য নেই। আমরা যদি এখনই অধিকার পাই তবে আমাদের শিশুরা এগিয়ে যাবে এবং ভাল করবে। আমাদের বাচ্চারাও সেনাবাহিনীতে যাবে, সরকারী চাকরী করবে। আমাদের এখানে কোন সমস্যা নেই। আমাদের একটি ধর্ম আছে এবং এটি সংরক্ষণ করার পরে আমরা ভারতে এসেছি।

প্রশ্ন -3 আপনি ছাড়াও আপনার পরিচিতদের মধ্যে আরও অন্য সাহাবী থাকবেন, তাদের CAB নিয়ে কি প্রতিক্রিয়া?
উত্তর – আমাদের সবার একই প্রতিক্রিয়া আছে। আমরা সরকারের প্রস্তাবে খুশি। লোকেরা ২০-৩০ বছর ধরে নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য অপেক্ষা করে। অনেকে পাসপোর্ট হারিয়েছেন, কেউ ভিসা পাচ্ছেন না। এমন পরিস্থিতিতে আমরা সকলেই এই প্রস্তাব নিয়ে খুব খুশি।

প্রশ্ন -৪ ধন্যবাদ ছাড়া মোদী সরকারকে আর কী বলবেন?
উত্তর- আমরা মোদী সরকারের প্রশংসা করি। হিন্দুদের সুবিধার জন্য যদি কেউ কিছু করেন তবে তা মোদী সরকার। তিনি যা করছেন, তিনি খুব ভাল করছেন… লোকেরা হিন্দু-মুসলমান করছে… মুসলমানদের বলুন এখানে সমস্যা কী? তাদের কী অসুবিধা আছে? আমাদের ওখানে হিন্দুরা সমস্যায় রয়েছে। তাদের নির্যাতন করা হয়। এ কারণেই আমরা এখানে এসেছি, কে নিজের বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে চায়… আমরা আমাদের ধর্ম, বাঁচাতে আমাদের কাজ, ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে এসেছি, আমাদের বাচ্চাদের জন্য এসেছি… আমাদের শিশুরা সেখানে শিক্ষিত ছিল, তবে তাদের পড়াশোনা এগোচ্ছিল না। এখানে এসে আমরা অনেক ধাক্কা খেয়েছি এবং তারপর আদালতের দরজায় কড়া নাড়লাম। আমরা শুধুমাত্র আমাদের বাচ্চাদের জন্য এগিয়ে চলেছি।

প্রশ্ন -5 আপনি কি ভাবেন যে, বর্তমানে যদি অন্য একটি সরকার থাকত তবে এটি সম্ভব হত?
উত্তর – না, একদম নয়। এটা কখনও সম্ভব হত না। কংগ্রেসই ধর্মের নামে দেশগুলিকে বিভক্ত করেছিল। ধর্মের নামে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ পৃথক হয়েছিল। আজ আমাদের ভারত সবাই মিলে মিশে রয়েছে। এখানে সবার অধিকার আছে। আমাদের দেশেও (পাকিস্তান) যদি এটি ঘটে থাকতো তবে কেন আমরা এখানে আশ্রয় নিতে আসব? কেউ কি তাদের সন্তান, পরিবার, জমি, মাতৃভূমি ছেড়ে চলে যায়? আজ আমরা এখানে খাচ্ছি, আমাদের কোনও বাড়ি নেই, বাচ্চাদের লেখাপড়ার জন্য কোনও অর্থ নেই … তবে তবুও আমরা খুশি যে আমরা কাজ করছি । আমরা এদেশে সম্মান পাচ্ছি। সব সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে। এর চেয়ে বেশি কি দরকার ! আমরা এখানে ভিক্ষা করতে পেরেও খুশি।