Press "Enter" to skip to content

CAA-এর বিরোধিতায় পর্ন স্টার মিয়া খালিফার ছবি শেয়ার করে ফের বেইজ্জত হলেন প্রাক্তন পাক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী

শেয়ার করুন -

পাকিস্তানের (Pakistan) নেতা আর মন্ত্রীদের মধ্যে এখনো শিক্ষার অভাব দেখতে পাওয়া যায়। ইমরান সরকারের মন্ত্রীরা প্রায় দিনই শিক্ষার অভাবের জন্য ট্রল হন। বিশেষ করে ভারতের সাথে জড়িত কোন মামলায়, তাঁরা সত্যতা যাচাই না করে উল্টোপাল্টা মন্তব্য দিতে থাকে। আর সম্প্রতি এমনই কিছু দেখা গেছে। এবার ইমরান খান সরকারের কোন মন্ত্রী না। এবার পাকিস্তানের প্রাক্তন সরকারের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রেহমান মালিক (Rehman Malik) ভারত বিরোধিতায় অন্ধের মতো কিছু এমন করলেন যে, গোটা বিশ্বে ওনাকে নিয়ে হাসিঠাট্টা শুরু হয়ে গেছে।

ভারতের সংসদে নাগরিকতা সংশোধন বিল পাশ হওয়ার পর থেকেই পাকিস্তান লাগাতার ভারতের উপর হামলা করে আসছে। আর ভারতও স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যে, এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ মামলা। এবার এই আইন নিয়ে ভারতকে বিঁধতে গিয়ে পাকিস্তানের প্রাক্তন মন্ত্রী নিজের দেশের মানুষদের আক্রমণের শিকার হলেন। এমনকি পাকিস্তানের সাংবাদিক মহলেও ওনাকে নিয়ে নানান সমালোচনার ঝড় উঠছে।

রেহমান মালিক একটি ট্যুইট করে পর্ন স্টার মিয়া খালিফাকে ভারতীয় প্রদর্শনকারী আখ্যা দিয়ে তাঁকে আশীর্বাদ করেন! অক্ষয় নামের এক ট্যুইটার ইউজার লেখেন, ‘ভারতীয় সিনেমা জগতের প্রভাবশালী অভিনেত্রীরা (যেখানে মিয়া খালিফার ছবিও দেওয়া ছিল” হিজাব পড়ে নাগরিকতা আইন সংশোধনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছেন।” এর জবাবে রেহমান মালিক লেখেন, ‘ভগবান ওনাকে আশীর্বাদ দিক।”

যদিও, যখন ট্যুইটার ইউজারেরা রেহমান মালিককে এই নিয়ে ট্রল করা শুরু করে, তখন রেহমান মালিক বাধ্য হয়ে ট্যুইট ডিলিট করে দেন। কিন্তু এরপর তিনি নিজের ক্ষোভ অন্য একটি ট্যুইটের মাধ্যমে জাহির করে। উনি লেখেন, ‘অনেক ভারতীয় ব্যাঙ্কার্সেরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে ভোট দিয়েছেন। এবার কি আপনারা ওনাদেরও ট্রল করবেন? তবে ট্যুইটার ইউজারেরা রেহমানের ট্যুইট ডিলিট করার পরেও থেমে না থেকে ওনাকে নিয়ে ট্রল করা জারি রাখেন।