আন্তর্জাতিকনতুন খবর

পয়গম্বরকে অপমান করেছিল প্রেমিকা, আদালতে মামলা করে ফাঁসিকাঠে ঝোলাল পাকিস্তানি প্রেমিক

নয়া দিল্লিঃ পাকিস্তানে ইসলাম অবমাননার দায়ে এক মহিলাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। অভিযুক্ত মহিলার নাম আনিকা আতিক। ২০২০ সালে তার বিরুদ্ধে ইসলাম অবমাননার দায়ে মামলা দায়ের করা হয়।

অভিযোগকারী ফারুক হাসনাতের অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডির আদালত এই রায় দিয়েছে। আনিকা আতিকের বিরুদ্ধে তিনটি অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে। প্রথমটি হল মোহাম্মদের অবমাননা, দ্বিতীয়টি হল ইসলামের অবমাননা এবং তৃতীয়টি সাইবার আইন লঙ্ঘন। ‘দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস’ জানায়, আনিকা ও ফারুক আগে বন্ধু ছিলেন। কিন্তু কিছু একটা নিয়ে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। এরপর রাগের মাথায় আনিকা ফারুককে হোয়াটসঅ্যাপে মোহাম্মদ সাহেব ও ইসলাম অবমাননার মেসেজ পাঠায়।

খবর অনুযায়ী, প্রথমে ফারুক তার ভুলের জন্য আনিকাকে ক্ষমা চাইতে বলেছিলেন। এছাড়াও, তাঁর সমস্ত হোয়াটসঅ্যাপ বার্তা মুছে দিতে বলেছিল ফারুক। কিন্তু আনিকা রাজি না হলে ফারুক অভিযোগ দায়ের করে। তদন্তে আনিকার বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায় আর এরপর আদালতে মামলা হয়।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানে ইসলাম অবমাননার আইন খুবই কঠোর। সামরিক স্বৈরশাসক জেনারেল জিয়া-উল-হক আশির দশকে দেশে এই আইন বাস্তবায়ন করেন। পাকিস্তানে ইসলাম অবমাননার অভিযোগে বেশ কয়েকজনকে হত্যার ঘটনাও সামনে এসেছে। গত বছর একই ধরনের অভিযোগে শ্রীলঙ্কার এক নাগরিককে পাকিস্তানি জনতা পিটিয়ে হত্যা করেছিল। নিহত শ্রীলঙ্কার নাগরিক শিয়ালকোটে কাজ করতেন।

ডিসেম্বরেই পাকিস্তানের চরসাদ্দা জেলার বাসিন্দা বশির মাস্তান নামে এক ব্যক্তিকে ইসলাম অবমাননার দায়ে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের একটি আদালত ইন্টারনেটে একটি ভিডিও আপলোড করে ধর্ম অবমাননা করার অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে। এছাড়াও, ওই ব্যক্তিকে এক লক্ষে পাকিস্তানি টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button