নতুন খবরভারতবর্ষ

মন্দিরে নাশকতা চালিয়ে উপত্যকায় উত্তেজনা সৃষ্টির চেষ্টা পাকিস্তানের, হাতেনাতে ধরল সেনা

শ্রীনগরঃ LOC-র পাশে থাকা পুঞ্ছ জেলায় মন্দিরে গ্রেনেড হা’ম’লা করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করার বড় ষড়যন্ত্রের পর্দাফাঁস হয়েছে। সেনা জঙ্গিদের তিন সহায়ককে গ্রেফতার করেছে। তাঁদের থেকে ছয়টি গ্রেনেড, পাকিস্তানি পতাকা আঁকা বেলুন আর লস্কর-ই-তইবা এর নতুন সংগঠন জম্মু কাশ্মীর গজনভি ফোর্সের পোস্টার উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার করা জঙ্গিদের সহায়কদের মোবাইল থেকে হ্যান্ড গ্রেনেড কীভাবে ছুঁড়তে হয় সেটির প্রশিক্ষণ ভিডিও পাওয়া গিয়েছে। তিনজনই দীর্ঘদিন ধরে জঙ্গিদের সাথে সম্পর্কে ছিল, তাঁদের পুঞ্ছ জেলার মেন্ডর গ্রামের অড়িতে মন্দিরে গ্রেনেড হামলা করার টাস্ক দেওয়া হয়েছিল।

SSP পুঞ্ছ রমেশ অগরবাল অনুযায়ী, মোক্ষম সময়ে তিনজনকে গ্রেফতার করার ফলে বড়সড় ঘটনা এড়ানো সম্ভব হয়েছে। তিনি জানান, শনিবার রাতে এলওসির পাশে থাকা কাঙরা গুলুতা মার্গে এসজিও আর ৪৯ রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের জওয়ানরা নাকা চেকিং করছিল। তখন তারা JK 02 BG 8086 নম্বরের একটি গাড়ি আটকায়। তল্লাশির সময় মুস্তফা খানের সন্দেহজনক গতিবিধির কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সে পাকিস্তানি জঙ্গিদের সাথে যুক্ত থাকার রহস্যের উন্মোচন করে।

জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তল্লাশি চালিয়ে ছয়টি গ্রেনেড উদ্ধার করা হয়। মুস্তফার স্বীকারোক্তির পর বালাকোট সেক্টরে নিয়ন্ত্রণ রেখার পাশে থাকা গ্রাম থেকে দুই ভাই মোহম্মদ ইয়াসিন আর মোহম্মদ ইকবালকে গ্রেফতার করা হয়। দুজনের কাছ থেকে জঙ্গি সংগঠন জম্মু-কাশ্মীর গজনভি ফোর্সের সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে। ওই সংগঠনের পোস্টার, লিফলেট আর অন্যান্য সামগ্রীর সাথে সাথে পাকিস্তানি ঝাণ্ডা আঁকা কয়েকটি বেলুন উদ্ধার করা হয়।

 

Related Articles

Back to top button