নতুন খবরভারতবর্ষ

অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণের জন্য ১০ কোটি টাকা দেবে পাটনার হনুমান মন্দির!

৫০০ বছরের বিতর্ক সমাপ্ত করে আদালত ইতিহাস গড়ে দিয়েছে। ফলস্বরূপ দেশ এখন নতুনভাবে পথ চলা শুরু করেছে। দেশে যে রাম মন্দির তৈরি হবে তার প্রক্রিয়ায় শুরু হয়েছে। ভগবান শ্রী রামের মন্দির তৈরির জন্য মানুষজন উৎসাহের সাথে এগিয়ে আসতে শুরু করেছেন। হিন্দুদের সাথে সাথে ওয়াসিম রিজভীর মতো মুসলিমরাও মন্দির নির্মাণে হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। মহাবীর মন্দির নিয়াস সমিতিরপাঁচ বছর ধরে প্রতি বছর 2 কোটি টাকার আর্থিক সাহায্য করবে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য।  এই তথ্য ন্যানশনাল বিভাগের সচিব এবং পূর্ব আইপিএস (IPS) কিশোর কুনাল দিয়েছে। শনিবার আগত সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের সাথে সাথেই  রাম মন্দির নির্মাণের পথ প্রসস্থ হয়ে গেছে।

সুপ্রীম কোর্টের এই সিদ্ধান্তের পরে বিহারের প্রসিদ্ধ  এবং রাজধানী পটনা জংশনে অবস্থিত মহাবীর মন্দির রাম মন্দির নির্মাণের জন্য সহায়তা করবে বলে জানিয়েছে।  মহাবীর মন্দির ট্রাস্ট কমিটি অযোধ্যার রাম মন্দির নির্মাণের জন্য  ১০ কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা করার ঘোষণা করেছে। তথ্য মতে, প্রতি বছর মহাবীর মন্দির ট্রাস্ট কমিটি 2 কোটি টাকা দিয়ে সাহায্য করবে। ট্রাস্ট কমিটির সেক্রেটারি ও প্রাক্তন আইপিএস অফিসার কিশোর কুণাল এ তথ্য জানিয়েছেন। জানা গেছে যে পাটনা জংশনের মহাবীর মন্দিরটি প্রাক্তন আইপিএস কর্মকর্তা কিশোর কুণালের দান বলেই পরিচিত। এটি বিহারের অন্যতম বিখ্যাত মন্দির। আচার্য কিশোর কুনালও অযোধ্যা নিয়ে একটি বই লিখেছেন। সুপ্রিম কোর্টে অযোধ্যা মামলার শুনানি চলাকালীন তাঁর বইটি খবরে ছিল।

পাটনার ক্যান্সার হাসপাতালটি মহাভীর মন্দির ট্রাস্ট কমিটি দ্বারাও পরিচালিত হয়। এর আগে, দেশের উভয় পক্ষই অযোধ্যা সংক্রান্ত সিদ্ধান্তকে সম্মান করেছে এবং বিচার বিভাগের সিদ্ধান্তকে সর্বোচ্চ বলে বিবেচনা করেছে। আচার্য কিশোর কুনাল এই বিষয়ে তথ্য দেওয়ার সাথে সাথে বলেছিলেন যে পাটনার মহাবীর মন্দির রামলালার জন্য অযোধ্যায় যাওয়া সমস্ত ভক্তদের জন্য নিখরচায় খাবারের ব্যবস্থা করবে। সারা বছর ধরে এই খাবারের ব্যবস্থা দিনরাত চলবে। অযোধ্যায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সাথে সাথে পাটনা হনুমান মন্দির থেকে এই ব্যবস্থা শুরু করা হবে।

Related Articles

Back to top button