আন্তর্জাতিকনতুন খবরভারতবর্ষ

চীনকে শায়েস্তা করতে চাই ব্রহ্মস মিসাইল, ভারতের সামনে লাইন লাগাল একাধিক দেশ

নয়া দিল্লিঃ ভারত-রাশিয়ার মিলিত প্রয়াসে নির্মিত ব্রহ্মস হল বিশ্বের সেরা সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল। যা ভারতের ব্রহ্মপুত্র এবং রাশিয়ার মস্কভা নদীর নামে নামকরণ করা হয়েছে। শব্দের চেয়ে প্রায় ৩ গুণ দ্রুত উড়ে যাওয়া এই ক্ষেপণাস্ত্রটি শুধু বিশ্বের দ্রুততম সুপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রই নয়, এর উচ্চ গতির কারণে এটিকে র‍্যাডারও ধরতে অক্ষম। এটি আমেরিকার হারপুনের চেয়ে উন্নত এবং চীনের ডগফেং (DF)-31AG আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ব্রহ্মসের সামনে উপযুক্ত নয়। তাই চীনের বিস্তারবাদী নীতিতে বিপর্যস্ত অনেক দেশ বিশ্বের এই দ্রুততম এবং সবচেয়ে শক্তিশালী সুপারসনিক ক্রুজ মিসাইল কিনতে মরিয়া।

এই ধারাবাহিকতায় ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, ইন্দোনেশিয়ার মতো দক্ষিণ-পূর্ব দেশগুলো ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্র কেনার আগ্রহ দেখাচ্ছে। সাম্প্রতিক একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, ফিলিপাইন শীঘ্রই ব্রহ্মস সুপারসনিক ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র অর্জন করতে পারে কারণ দেশটি একটি উপকূল-ভিত্তিক জাহাজ-বিরোধী অস্ত্র ব্যবস্থা অধিগ্রহণের জন্য তহবিল বরাদ্দ করেছে।

ফিলিপাইনে ভারতের রাষ্ট্রদূত জয়দীপ মজুমদার বলেন, “ভারত ও ফিলিপাইনের মধ্যে বেশ কিছু অস্ত্র ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা চলছে। একবার সফর সম্ভব হলে ডিফেন্স লজিস্টিকস বিষয়ক জয়েন্ট কমিটি এসব বিষয়ে আলোচনা করতে বৈঠক করবে।” ভারত প্রতিরক্ষা সামগ্রীর জন্য ফিলিপাইনের কাছে ১০০ মিলিয়ন কারকিন ডলারের লাইন অফ ক্রেডিট প্রস্তাব করেছিল, কিন্তু ফিলিপাইন তাঁর নিজস্ব তহবিল থেকেই ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্র কেনার আগ্রহ দেখাচ্ছে।

২৭ ডিসেম্বর ফিলিপাইনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের নির্দেশে বাজেট ব্যবস্থাপনা বিভাগ (DBM) ফিলিপাইন নৌবাহিনীর উপকূল-ভিত্তিক অ্যান্টি-শিপ মিসাইল সিস্টেমের জন্য ১.৩ বিলিয়ন ফিলিপাইনের মুদ্রা খরচে দুটি বিশেষ বরাদ্দ আদেশ (SARO) জারি করেছে। SARO ফিলিপাইনের জাতীয় প্রতিরক্ষা বিভাগকে সামরিক হার্ডওয়্যার চুক্তি সম্পাদন করতে সক্ষম করে। ২০২২ সালের জানুয়ারিতে ম্যানিলা (ফিলিপাইনের রাজধানী) এবং নয়াদিল্লি ব্রহ্মস ক্ষেপণাস্ত্র এবং অন্যান্য ভারতীয় প্রতিরক্ষা প্রযুক্তির সম্ভাব্য ক্রয়ের জন্য একটি ‘বাস্তবায়ন চুক্তি’ স্বাক্ষর করেছে।

এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা উপকূলীয় প্রতিরক্ষা এবং স্থল আক্রমণ উভয় ভূমিকার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগর অঞ্চলে প্রধানত চীনা আক্রমণ মোকাবেলায় ফিলিপাইনের সামরিক সক্ষমতাকে শক্তিশালী করবে। এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ফিলিপাইনের রাষ্ট্রপতি রদ্রিগো দুতার্তে, যার এখন মাত্র ছয় মাস শাসন বাকি রয়েছে।

ফিলিপাইনের প্রতিরক্ষা আধিকারিকদের মতে, রাষ্ট্রপতি তাঁর কার্যকালের শেষ ৬ মাসে এই প্রতিরক্ষা চুক্তিটি সম্পন্ন করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু কোভিডের কারণে তা হতে পারেনি। যদিও ভারত ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্রেডিট লাইনের প্রস্তাব করেছিল, কিন্তু ফিলিপাইনের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আগত সরকারকে ঋণের বোঝা চাপতে চাননি। একই সময়ে, এখন ফিলিপাইনের তহবিলের অভাব নেই, তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব চুক্তিটি সম্পন্ন করতে চায়।

অন্যদিকে, দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের বিস্তারবাদী নীতিতে বিপর্যস্ত ভিয়েতনামও ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া এবং ব্রুনাই সহ পাঁচটি সংগ্রামী দেশের মধ্যে একটি। ফিলিপাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, ইন্দোনেশিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকার পাশাপাশি ভিয়েতনাম এই মিসাইল কেনার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। নয়াদিল্লি এবং হো চি মিন সিটির মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করতে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং জানুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে ভিয়েতনাম সফরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে৷

Related Articles

Back to top button