Press "Enter" to skip to content

ভারতে ISIS এর দুর্গ বলে পরিচিত কেরলে CAA এর বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাশ হল বিধানসভায়

শেয়ার করুন -

নাগরিকতা সংশোধন আইনের বিরুদ্ধে কেরল সরকার বিধানসভায় প্রস্তাব পেশ করলো। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন মঙ্গলবার বিধানসভায় CAA  এর বিরুদ্ধে প্রস্তাব পেশ করেন, আর সেটি পাশও হয়ে যায়। বিধানসভায় কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলেন, ‘কেরলে ধর্মনিরপেক্ষতার দীর্ঘ ইতিহাস আছে। আর আমি এটা স্পষ্ট জানিয়ে দিতে চাই যে, কেরলে কোন ডিটেশন সেন্টার বানানো হবেনা।” বিধানসভায় কংগ্রেস, সিপিআইএম দ্বারা পেশ করা এই প্রস্তাবকে সমর্থন করে।

এই প্রস্তাবে সিপিএআইএম এর বিধায়ক জেমস ম্যাথু, কংগ্রেস বিধায়ক বিডি সতিশন, সিপিআই এর বিদ্যাওক দিবাকরণ সমর্থন করেন। কংগ্রেস বিধায়ক বিডি সতিশন জানান, ‘এনআরসি আর সিএএ, এক মুদ্রার দুই পিঠ। সিএএ আর্টিক্যাল ১৩, ১৪ আর ১৫ ধারার স্পষ্ট লঙ্ঘন করে।” সিপিআই বিধায়ক দিবাকরণ বলেন, ‘বিধানসভায় এইরকম প্রস্তাব পেশ করার জন্য বাধ্য করা হচ্ছে। ভারতে কোন একটি জিনিষের এত বিরোধিতা আগে দেখিনি। এই প্রস্তাব পেশ করে আমরা গোটা বিশ্বেকে বার্তা দিতে চলেছি।”

আরেকদিকে কেরলের বিজেপি বিধায়ক রাজগোপাল এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন। উনি বলেন রাজনীতি সঙ্কীর্ণ মানসিকতার প্রতীক। এর আগে নাগরিকতা সংশোধন আইন নিয়ে অ-বিজেপি শাসিত রাজ্যের কড়া বিরোধিতার মধ্যে সোমবার কেন্দ্র থেকে জানায় যে, এই আইন দেশের সমস্ত রাজ্যকে লাগু করতে হবেই। কেন্দ্র পরিস্কার জানায় যে, এই আইনের মাধ্যমে কারোর নাগরিকতা কেড়ে নেওয়া হবেনা।

আপনাদের জানিয়ে রাখি, কেরলে বড়সড় ঘাঁটি গেঁড়ে রেখেছে জঙ্গি সংগঠন ISIS। এর আগে শ্রীলঙ্কায় ইস্টারের দিনে বোম ধামাকার সুত্র পাওয়া গেছিল এই কেরল রাজ্য থেকেই। আরেকদিকে এখনো পর্যন্ত কেরল থেকে বহু ISIS এর মডিউলকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা সংস্থা গুলো। এছাড়াও প্রায় দিনই শোনা যায় যে, কেরল থেকে পালিয়ে কোন এক বিশেস ধর্মের মানুষ সিরিয়া, ইরাকে গিয়ে ISIS এ যোগ দিচ্ছে। আর এই মতে কেরলে CAA  এর বিরোধিতা করা যে ISIS জঙ্গিদের আরও উৎসাহিত করবে, সেটা বলাই বাহুল্য।