Press "Enter" to skip to content

আন্তর্জাতিক বাজারে রপ্তানি বৃদ্ধি করার চেষ্টায় ভারত! BRICS সম্মেলনে যোগ দিতে ব্রাজিলে পৌঁছালেন প্রধানমন্ত্রী মোদী।

শেয়ার করুন -

ভারত এখন লাগাতার নিজের শক্তি বৃদ্ধি করছে। সামরিক ও আর্থিক দুই দিল থেকেই ভারত নিজেকে শক্তিশালী করার ভরপুর প্রয়াস চালাচ্ছে। বিগত তিন মাসে ভারতের GDP গ্রোথ রেট কম থাকলেও বার্ষিক গড় GDP দুর্দান্ত রয়েছে। যার উপর ভিত্তি করে দেশ ৫ ট্রিলিয়ন ডলার অর্থনীতির স্বপ্ন দেখছে। তবে এক্ষেত্রে ভারতের জন্য সবথেকে বড়ো চ্যালেঞ্জ হবে আন্তর্জাতিক ব্যাবসার অসামঞ্জস্য বন্ধ করা। অর্থাৎ বিশ্বের অনেক দেশ ভারতে যে পরিমান মাল রপ্তানি করে, ভারত প্লাটা সেই পরিমান মাল ওই দেশে রপ্তানি করে না। ফলে আমদানির পরিমান বেড়ে গেলেও রপ্তানি কমে যায়। ফলস্বরূপ দেশের আর্থিক ক্ষতি হয়। ভারত সরকার এখন এই বিষয়গুলিকে সমাধান করার উপর জোর দিয়েছে।  এর জন্য ভারতের কাছে BRICS সম্মেলন একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ষষ্ঠবারের জন্য একাদশ ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিতে যাচ্ছেন। এজন্য তিনি আজ ব্রাজিলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। জানিয়ে দি যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সম্প্রতি থাইল্যান্ড সফর করে ফিরে এসেছেন। এর আগেও ব্রাজিলের ফোর্টালিজায় শীর্ষ সম্মেলনে অংশ নিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, আজ বিকেলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ব্রাজিলের রাজধানী ব্রাসিলিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। ভারত থেকে শিল্পপতিদের একটি বিশাল প্রতিনিধি দলও এই সফরে উপস্থিত থাকতে পারেন। প্রতিনিধি দলটি ব্রিকস বিজনেস ফোরামে বিশেষভাবে অংশ নেবে যেখানে পাঁচটি দেশের ব্যবসায়ী সম্প্রদায় উপস্থিত থাকবে।

আমি আপনাকে বলি যে প্রতিবার একটি ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলন মোটামুটি থিমে করা হয়। এবার এই সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হ’ল “উদ্ভাবনী ভবিষ্যতের জন্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি”। ব্রিকস শীর্ষ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী মোদী রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন এবং চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিংয়ের সাথে পৃথক দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করবেন। এর পরে, ব্রিকসের একটি সম্পূর্ণ অধিবেশন নির্ধারিত হবে। এতে প্রধানমন্ত্রী মোদী সহ সমস্ত নেতারাও ব্রিকস বিজনেস কাউন্সিলে অংশ নেবেন। এতে ব্রাজিলিয়ান ব্রিকস বিজনেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান এবং নিউ ডেভলপমেন্ট ব্যাংকের চেয়ারম্যানরা নিজের নিজের প্রতিবেদন জমা দেবেন।