Press "Enter" to skip to content

মিরাজ, শুখোই আর মিগ-২৯ এর পর লাদাখে মোতায়েন হচ্ছে লড়াকু বিমান রাফাল

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ ভারত (India) আর চীনের (China) মধ্যে সীমান্ত নিয়ে বিবাদ এখনো চলছে। আর এরমধ্যে চীনের সাথে বাস্তবিক নিয়ন্ত্রণ রেখায় পরিস্থিতি নিয়ে চর্চা করতে ভারতীয় বায়ুসেনার (Indian Air Force) শীর্ষ কম্যান্ডাররা এই সপ্তাহে বৈঠক করবেন। এছাড়াও এই মাসের শেষের দিকে ভারতে পৌঁছান রাফাল (Rafale) লড়াকু বিমানকে চীন সীমান্তে মোতায়েন করা নিয়েও চর্চা হবে। বায়ুসেনার আধিকারিক জানান, শীর্ষ কম্যান্ডাররা এই সপ্তাহের ২২ জুলাই থেকে শুরু হওয়া দুই দিবসিয় কম্যান্ডার সন্মেলনে সাক্ষাৎ করবেন। সেখানে অনেক বিষয় নিয়ে চর্চা হবে।

সুত্র থেকে জানা যায় যে, বায়ুসেনা প্রধান আরকেস ভাদোরিয়ার নেতৃত্বে হওয়া এই বৈঠকের প্রধান এজেন্ডায় চীনের সাথে সীমান্তে চলা পরিস্থিতিআর পূর্ব লাদাখের উত্তর সীমান্তে সেনা দ্বারা করা ফরোয়ার্ড পোস্ট জওয়ান মোতায়েন থাকবে। এই বৈঠকে সাতজন কম্যান্ডার ইন চীফই উপস্থিত থাকবেন।

বায়ুসেনা নিজেদের স্কোয়াড্রানে বর্তমানে উপস্থিত বিমান যেমন মিরাজ ২০০০, শুখোই-৩০ আর মিগ-২৯ এর মতো বিমানকে উন্নত আর ফরোয়ার্ড পোস্টে মোতায়েন করেছে। সেখান থেকে যাতে সহজেই দিন আর রাতে অপারেশন করা যায়, সেই জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। অ্যাপাচে অ্যাটাক হেলিকপ্টার গুলোকে চীনের সীমান্তের সাথে সাথে ফরোয়ার্ড বেসেও মোতায়েন করা হয়েছে আর এই হেলিকপ্টার গুলো রাতের সময়েও লাগাতার চীন সীমান্তে নজরদারি চালাচ্ছে।

বায়ুসেনার শীর্ষ আধিকারিকরা এই মাসে ফ্রান্স থেকে পাওয়া রাফাল লড়াকু বিমান গুলোকেও দ্রুত চীন সীমান্তে মোতায়েন করা নিয়ে চর্চা করবেন। এক আধিকারিক জানান, ইন্ডিয়া স্পেসেফিক ইনহ্যান্সমেন্ট লড়াকু বিমানের সাথে সাথে দীর্ঘ দূরত্বের হাতিয়ার যেমন মিটিয়ার এয়ার টু এয়ার মিসাইল ভারতকে চীন আর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অনেক বেশি শক্তিশালী করবে।l