Press "Enter" to skip to content

CAA এর সমর্থনে নামছেন একের পর এক আধ্যাত্মিক গুরু! বললেন এখন আশ্রমে বসার সময় নয়, সমর্থন জানানোর সময়।

শেয়ার করুন -

সদ্‌গুরু, দেবকিনন্দনের পরে দীপঙ্কর স্বামীর মতো আধ্যাত্মিক গুরুরা CAA ইস্যুতে সরকারের সমর্থনে মাঠে নেমেছেন। CAA নিয়ে এখনও তোলপাড় চলছে এবং এর সমর্থক এবং বিরোধীরা প্রকাশ্য সমর্থন বা বিরোধিতা প্রকাশ করছে। একই সাথে, আধ্যাত্মিকতার জগত থেকে বহু মানুষ এটি সমর্থন করার জন্য আসছেন, প্রথমে সদ্‌গুরু, পরে দেবকিনন্দন এবং এখন স্বামী দীপঙ্করও এটি সমর্থন করেছেন। আধ্যাতিক গুরুর খোলাখুলি সরকারের সমর্থনে তথা CAA এর সমর্থনে দাঁড়িয়েছে। CAA আইন নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ চলেছে। কিছু জায়গায় অবৈধ বাংলাদেশি ও রোহিঙ্গারা দাবি করেছে CAA এর আওতায় মুসলিমদেরও আনা হোক।

অর্থাৎ পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আগত মুসলিমদেরও এই আইনের আওতায় আনার দাবি তুলেছে অনেকে। অন্যদিকে কিছু জায়গায় লোকজন অন্যের দ্বারা উস্কানি পেয়ে রাস্তায় ভাঙচুর করেছে। CAA এর বিরোধের নামে কট্টরপন্থীদের এই উপদ্রবের জন্য বহু সরকারি সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছে। আসলে CAA নিয়ে অনেক মানুষের মধ্যে ভ্রান্তি ধারণা জমেছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। আসলে অনেকজনকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে যে CAA এর অর্থ হলো মুসলিমদের দেশ থেকে বিতাড়ন করা। যদিও CAA এর মাধ্যমে পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে আগত হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।

জানিয়ে দি স্বামী দীপঙ্কর এর আগে রাম মন্দির নিয়ে বহু সময় লড়াই চালিয়েছেন। স্বামী দিপঙ্কর সম্প্রতি পাটনার ফুলওয়ারি শরীফের মন্দির ভেঙে দেওয়ার বিষয়টি দেশের জনতা মিডিয়া জগতে উত্থাপন করেছিলেন। উনি প্রশ্নঃ তুলেছিলেন কেন দেশে এইভাবে মন্দির ভাঙা হচ্ছে। আইন কি শুধু হিন্দুদের উপর প্রয়োগ হয়?

 

CAA নিয়ে হওয়া হিংসা নিয়ে বলতে গিয়ে স্বামী দীপঙ্কর বলেছেন রাম মন্দিরের পক্ষে রায় আসার পর আমরা একটাও প্রদীপ জ্বালায়নি। কিন্তু এরা CAA নিয়ে দেশজুড়ে আগুন লাগিয়ে দিল। স্বামী দীপঙ্কর বলেছেন এখন আশ্রমে বসার সময় নেই এখন CAA এর সমর্থনে রাস্তায় নামার সময়।