নতুন খবরভারতবর্ষ

প্রধানমন্ত্রী মোদীকে মিথ্যাবাদী বলে নিজের নাক কাটালেন শশী থারুর, চাইতে হলো ক্ষমা

দুদিনের সফরে বাংলাদেশ পৌঁছেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে এয়ারপোর্টে পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী মোদীকে স্বাগত জানান। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বাংলাদেশে যেভাবে স্বাগত জানানো হয়েছে তাতে নিঃসন্দেহে পাকিস্তান ও চীনের গালে সপাটে চড় পড়েছে।

বাংলাদেশের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মোদী তার জীবনের এক গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় ব্যাক্ত করেন। প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন তিনি ২২ বছর বয়সে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সত্যাগ্রহ আন্দোলন করেছিলেন এবং এর জন্য উনাকে জেলে অবধি যেতে হয়েছিল। তবে প্রধানমন্ত্রী মোদীর এমন বক্তব্য সামনে আসার পরই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোল করতে নেমে পড়ে সর্বজান্তা বুদ্ধিজীবী ব্রিগেড।

লিবারেল ও স্বঘোষিত বুদ্ধিজীবী ব্রিগেডের তরফে দাবি করা হয় যে প্রধানমন্ত্রী মোদী বাংলাদেশে গিয়ে মিথ্যা কথা বলেছেন। কোনো কিছু তথ্য যাচাই না করেই এমন দাবি করে বুদ্ধিজীবী ব্রিগেডে। কংগ্রেস নেতা শশী থারুরও প্রধানমন্ত্রী মোদীর বক্তব্যকে ভুয়ো বলে দাবি করেন। শশী থারুর বলার চেষ্টা করেন, নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশে গিয়ে মিথ্যা কথা বলছেন। উনি কখনোই বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য জেল খাটেননি। শশী থারুর টুইট করে বলেন যে , বাংলাদেশকে কে স্বাধীন করেছে এটা সবাই জানেন, প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে মিথ্যা বলছেন।

তবে কিছু সময় পরই ভুল ভাঙে শশী থারুরের। নিজের ভুল শিকার করে কংগ্রেস নেতা বলেন আমি নিজের ভুল মানতে জানি। আমি না জেনেই তাড়াহুড়োতে ভুল পোস্ট করেছিলাম। জানিয়ে দি, অটল বিহারী বাজপেয়ীর নেতৃত্বে নরেন্দ্র মোদী সহ বেশকিছু জনসঙ্ঘের কার্যকর্তা বাংলাদেশের সমর্থনে আন্দোলনে নেমেছিলেন। সেই সময় তিহাড় জেলে যেতে হয়েছিল প্রধানমন্ত্রী মোদীকে।

Related Articles

Back to top button