Press "Enter" to skip to content

হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু দাদুর, টুইটারে অক্সিজেনের অভাবে বলে গুজব ছড়ানো ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল যোগীর পুলিশ

শেয়ার করুন -

লখনউঃ উত্তর প্রদেশের আমেঠিতে এক ব্যক্তি অক্সিজেন নিয়ে গুজব ছড়ানোর কারণে এখন পুলিশের হেফাজতে। শশাঙ্ক যাদব নামের টুইটার ইউজার নিজের দাদুর জন্য অক্সিজেনের আবেদন করেছিলেন। নিজের টুইটে শশাঙ্ক এটা জানান নি যে, ওনার দাদু করোনার সংক্রমিত ছিল কি না। শশাঙ্কের দাদু হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হয়েছেন। শশাঙ্ক সোমবার অভিনেতা সোনু সুদকে ট্যাগ করে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছিলেন।

শশাঙ্কের এক বন্দু অঙ্কিত সেই ম্যাসেজ শেয়ার করে সাংবাদিক আরফা শেরবানীর কাছে সাহায্য চেয়েছিলেন। এরপর সেই পোস্টটি শেয়ার করে আরফা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানিকে ট্যাগ করেন।

যদিও শশাঙ্ক, অঙ্কিত আর আরফা কেউই উল্লেখ করেছিলেন না যে শশাঙ্ক করোনা আক্রান্ত রোগীর জন্য অক্সিজেন সিলেন্ডার চাইছে। টুইটের পর স্মৃতি ইরানি জবাব দেন, উনি লেখেন ‘আমি শশাঙ্ককে কবার ফোন করেছি, কিন্তু তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।” স্মৃতি ইরানি বলেন, আমি জেলা শাসক আর আমেঠি পুলিশকে বিষয়টিতে নজর দিতে বলেছি। পরে জানতে পারি যে, শশাঙ্ক যাদবের দাদু প্রয়াত হয়েছেন। স্মৃতি ইরানি নিজে সমবেদনাও ব্যক্ত করেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আমেঠির জেলা ম্যাজিস্ট্রেট অরুণ কুমার সাংবাদিক আরফা শেরবানীর টুইটের জবাব দেন আর সিএমও-এর রিপোর্ট শেয়ার করেন। সেখানে বলা হয় যে, শশাঙ্কের দাদু করোনায় আক্রান্ত ছিলেন না। দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তাঁর চিকিৎসা চলছিল। ৮৮ বছরের ওই বৃদ্ধ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত হন।

আমেঠি পুলিশ জানান, ‘এই সময় এটি শুধুমাত্র নিন্দনীয় ঘটনাই নয়, পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করার ক্রাইম” এসপি দীনেশ কুমার বলেন, ওই ব্যক্তিকে অক্সিজেনের অভাব হওয়ার গুজব সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ানোর জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে। এই গ্রেফতারীর ফলে তাঁদের কাছে একটি কড়া বার্তা যাবে, যারা সোশ্যাল মিডিয়ায় এই মহামারী নিয়ে গুজব আর ভয় ছড়ানোর কাজ করছে।

এসপি আরও বলেন, দাদু অসুস্থ হলে শশাঙ্ক সোনু সুদকে ট্যাগ করে সাহায্য চেয়ে বলেন, অক্সিজেন সিলিন্ডারের দরকার। কিন্তু উনি হাসপাতালে অক্সিজেন সিলেন্ডারের খোঁজ করেন নি, আর না ওনার দাদু করোনা আক্রান্ত ছিলেন।