Press "Enter" to skip to content

তিন দেশ থেকে আসা মুসলিমরা যদি রাজ্যে না থাকত, তাহলে মমতা ২২ কেন ২টো আসনও পেতেন নাঃ সুজাতা খাঁ

শেয়ার করুন -

নাগরিকতা আইন নিয়ে তোলপাড় গোটা দেশ। এই আইনের বিরুদ্ধে যেমন রাজনৈতিক দল গুলো রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ জানিয়েছে। তেমনই অনেক সাধারণ মানুষও এই আইনের সমর্থনে রাস্তায় নেমেছে। শুধু দেশ না, বিদেশেও নাগরিকতা সংশোধন আইনের সমর্থনে ভারতের পতাকা নিয়ে নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসা করে মানুষের ঢল রাস্তায় নেমেছে।

আরেকদিকে এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী প্রায় প্রতিদিনই রাজ্যের আনাচে, কানাচে এই জেলায় ওই জেলায় এই আইনের বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে মানুষের সমর্থন কুড়াচ্ছেন। মমতা ব্যানার্জী স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন যে, এই আইন সংবিধান বিরোধী আর এই আইন তিনি এই রাজ্যে কোন মতেই লাগু হতে দেবেন না। উনি এও বলেছেন আমি মরলেও এই আইন লাগু হতে দেবোনা।

আরেকদিকে বিজেপির অনেক নেতা, নেত্রীরা মমতা ব্যানার্জীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে এই আইন রাজ্যে লাগু করবেই বলে জানিয়ে দিয়েছেন। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ বলেছেন যে, এই আইনের কারণে কোন ভারতীয়র নাগরিকতা কেড়ে নেওয়া হবেনা। শুধু বাংলাদেশ, পাকিস্তান আর আফগানিস্তান থেকে ধর্মের কারণে অত্যাচারিত হয়ে ভারতে আসা হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, জৈন আর পারসিদের এদেশের নাগরিকতা দেওয়া হবে।

এবার বিজেপির নেত্রী তথা বিষ্ণুপুরের বিজেপির সাংসদ সৌমিত্র খাঁ এর স্ত্রী সুজাতা খাঁ এই আইনের সমর্থনে মমতা ব্যানার্জীর বিরুদ্ধে সুর চরালেন। উনি আজকে একটি জনসভায় ভাষণ দেওয়ার সময় বলেন, যদি পাকিস্তান, বাংলাদেশ আর আফগানিস্তান থেকে অনুপ্রবেশকারীরা না থাকত এ দেশে, তাহলে মমতা ব্যানার্জী লোকসভায় ২২ টা কেন ২ টি আসনও পেতেন না।

সুজতা খাঁ নিজের ভাষণে নাগরিকতা আইনের প্রয়জনিয়তা মানুষের সামনে তুলে ধরেন। এবং তিনি সবাইকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেন যে, এই আইনের ফলে দেশের নাগরিকদের কোন ক্ষতি হবেনা। শুধু ওই তিন মুসলিম দেশ থেকে আসা সংখ্যালঘুদের এদেশের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।