Press "Enter" to skip to content

হিন্দুদের দেব দেবীর অপমান বন্ধ হোক, নোংরামি কাজে লাগাম চাই: রজনীকান্ত, সুপারস্টার

শেয়ার করুন -

মহান সন্ন্যাসী স্বামী বিবেকানন্দ বিদেশ ভ্রমন থেকে ফেরার পর হিন্দুদের আত্মশক্তিকে জাগ্রত করার জন্য ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বক্তব্য রাখতেন। উত্তরাখণ্ড রাজ্যের এক এলাকায় ভাষণ দিতে গিয়ে স্বামীজী বলেছিলেন, নিরীহ হিন্দু- শব্দটি কখনো কখনো তিরস্কার হিসেবে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু যদি কোনো তিরস্কারের মধ্যে অদ্ভুত সত্যের কিছু অংশ নিহিত থাকে তাহলে সেটা এই শব্দের মধ্যেই আছে। নিরীহ হিন্দু সদা সর্বদা জগৎ পিতার প্রিয় সন্তান। স্বামীজী এও বলেছিলেন যে হিন্দুদের উপর এত আঘাত তাদের আরো মজবুত ও স্থায়ী করছে।

স্বামীজীর বক্তব্য যেন এখন বাস্তবে পরিণত হচ্ছে। হিন্দুদের উপর খারাপ আচরণের বিরুদ্ধে আগে শুধুমাত্র জাতীয়তাবাদী ও হিন্দুত্ববাদীরা আওয়াজ তুলতো। এখন দেশের বড়ো বড়ো ব্যক্তিত্বরাও হিন্দু বিরোধীদের বিরুদ্ধে মুখর হচ্ছেন যা নিঃসন্দেহে পুরো হিন্দু সমাজের মনোবল বৃদ্ধি করতে সাহায্য করছে করছে।

সম্প্রতি এক সংগঠন দ্বারা হিন্দুদের দেব দেবীকে অপমান করে ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছিল। ভগবান মুরুগানকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অসভ্যতামি ছড়ানো হচ্ছিল। হিন্দুদের এক শ্লোককে বাজে ভাবে প্রকাশ করে ঠাট্টা তামাশা চলছিল। যা নিয়ে সুপারস্টার রজনীকান্ত মুখর হয়েছেন এবং হিন্দু বিরোধীদের কড়া ভাষায় আক্রমন করেছেন।

হিন্দুদের ভগবান মুরুগানকে অপমান করায় তামিল হিন্দুদের অনুভূতিতে আঘাত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন রজনীকান্ত। সেই সাথে উনি এই ধরনের অভদ্রতামি বন্ধ করার জন্য আওয়াজ তুলছেন। রজনীকান্ত নোংরা ভিডিওকে সোশ্যাল মিডিয়ায় থেকে সরানোর জন্য সরকার ও পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জানিয়ে দি, কারুপ্পার কোটম প্রযোজিত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। কারুপ্পার কোটম একটি ইউটিউব চ্যানেল যা পেরিয়েরিস্ট সংগঠন দ্বারা পরিচালিত। ভিডিওতে স্কন্দ শাশ্বী কাবাচরামকে অপমান করা হয়েছিল। এরপর তামিল হিন্দু সমাজ হিন্দু বিরোধিদের উপর আক্রোশ প্রকাশ করে। ব্যাপক প্রতিবাদের পর প্রশাসন পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হয়।

রজনীকান্ত বলেছেন, আমি ভিডিওটির বিরুদ্ধে সরকারের নেওয়া পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই। এমনভাবে ঘৃণা ছড়ানো বন্ধ হোক। ধর্মের সন্মান হওয়া উচিত এবং ভগবানের অপমান বন্ধ হওয়া উচিত।