নতুন খবরভারতবর্ষ

CAA এর সমর্থনে মিছিল করলো লন্ডনে থাকা ভারতীয় বংশোদ্ভূতরা! পার্লামেন্ট স্কয়ারের সামনে হলো মিছিল।

আইন নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ চলেছে। কিছু জায়গায় মানুষ দাবি করেছে এর আওতায় মুসলিমদেরও আনা হোক। অর্থাৎ পাকিস্তান ও বাংলাদেশ থেকে আগত মুসলিমদেরও এই আইনের আওতায় আনার দাবি তুলেছে অনেকে। অন্যদিকে কিছু জায়গায় লোকজন অন্যের দ্বারা উস্কানি পেয়ে রাস্তায় ভাঙচুর করেছে। এর বিরোধের নামে কট্টরপন্থীদের এই উপদ্রবের জন্য বহু সরকারি সম্পত্তির ক্ষতি হয়েছে। আসলে নিয়ে অনেক মানুষের মধ্যে ভ্রান্তি ধারণা জমেছে বলে অনুমান করা হচ্ছে। আসলে অনেকজনকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে যে এর অর্থ হলো মুসলিমদের দেশ থেকে বিতাড়ন করা। যদিও এর মাধ্যমে পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে আগত হিন্দু, বৌদ্ধ, জৈন, খ্রিস্টানদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।

তবে এখন CAA এর সমর্থনেও লোকজন রাস্তায় নামতে শুরু করেছেন। আজ ে () বাস করা ভারতীয় বংশোদ্ভূতরা CAA এর সমর্থনে রাস্তায় নেমেছে। পার্লামেন্ট স্কোয়ারের বাইরে ে মানুষজন বড়ো সংখ্যায় হাজির হয়েছিল। যেখানে ভারত মাতা কি জয়, বন্দেমাতরম এর মতো শ্লোগানও দেওয়া হয়। জানিয়ে দি, CAA নিয়ে দেশের সেলিব্রেটি জগৎ থেকে বুদ্ধিজীবী জগত দু ভাগে ভাগ হয়ে গেছে।

বেশিরভাগজন একদিকে CAA এর সমর্থনে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে অবৈধ বাংলাদেশি, রোহিঙ্গারা ও তাদের সমর্থকরা CAA এর বিরোধে নেমে পড়েছে। তদের দাবি CAA হলো এর প্রথম ধাপ যা কেন্দ্র সরকার দ্বারা লাগু হয়েছে। কুস্তিগীর যোগেশ্বর দত্ত বলেছেন যারা CAA এর প্রতিবাদের নামে উপদ্রব করছে তারা প্রমাণ করছে যে তারা ভারতের নাগিরিক নন।

যোগেশ্বর দত্ত বলেছেন, “আমার দেশ আমার দেশ বললেই নিজের দেশ হয়ে যায় না। ভারতে এখনও বাবরের বংশধররা রয়ে গেছে যারা এমন উৎপাত করছে। এরা দেশের সম্পত্তি নষ্ট করে প্রমান দিয়ে দিচ্ছে যে এরা ভারতের নাগরিক নয়। যারা দেশের নাগরিক তারা কখনই দেশের ক্ষতি করবে না। যারা দেশের নাগরিক হবে তাদের ভয় কিসের? বিরোধ প্রদর্শন করার অর্থ দেশের ক্ষতি করা নয়। আর এখন CAA এর সমর্থনে লন্ডনে থাকা ভারতীয়রাও তাদের সমর্থন দেখিয়েছে।

Back to top button
Close