নতুন খবরভারতবর্ষ

তাবলীগ মুসলিমদের খোঁজ করতে যাওয়ায় পুলিশের উপর আক্রমন করল কট্টরপন্থীরা, আহত বেশকিছু পুলিশকর্মী

পুরো দেশ করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে আতঙ্কিত হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে তাবলীগ জামাত না করেছে তাতে পরিস্থিতি অত্যন্ত ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। তবে করোনা ভাইরাসের থেকেও বেশি যে ভয়ানক জিনিস ভারতকে চাপে ফেলছে তা হল সেকুলারিজম ভাইরাস। আসলে তাবলীগ জামাতকে বের করে আনতে তথা মসজিদ খালি করতে রাত দুটোর সময় দেশের অজিত দোভালকে মাঠে নামতে হয়েছিল। কোনো ছোট মানের ব্যক্তিত্ব নন, উনি একটা পরমাণুশক্তিধর দেশের NSA। একজন NSA প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি হয়ে থাকেন অর্থাৎ উনাকে প্রধানমন্ত্রীর প্রায় সমকক্ষ ধরা যেতে পারে।

এখন চিন্তার বিষয় এই যে, মসজিদ খালি করানোর কাজ একজন সাব ইন্সপেক্টর দ্বারা হয়ে যায় তা NSA কে করতে হচ্ছে। এটা যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের পুরোপুরি দুর্বলতার প্রকাশ তা নিয়ে সন্দেহ নেই। একজন গলির মৌলানার সাথে কথা বলার জন্য পরমাণুশক্তিধর দেশের NSA কে যেতে হয়। অর্থাৎ সেকুলারিজমের দৌলতে মৌলানারা এখন পুলিশ, এসপি, ডিএসপি কাউকে তোয়াক্কা করার না। সরাসরি দেশের NSA এর সাথে বার্তা করার সাহস জুগিয়ে ফেলেছে। এই সেকুলারিজম ভাইরাসের দরুন আরো বেশকিছু ঘটনা দেশের নানা প্রান্ত থেকে সামনে আসছে।

তাবলীগ জামাতে কারা কারা তা বের করার জন্য দেশের নানা প্রান্তে সার্চ অপারেশন চলছে যাতে তাদের চিকিৎসা করা যায় এবং ভাইরাস সংক্রমণ আটকানো যায়। কিন্তু বহু স্থানে কট্টরপন্থীরা ভিড় জমা করে পুলিশের উপর আক্রমন করছে বলে খবর সামনে আসছে। গুজরাট থেকে এমন ঘটনার খবর সামনে আসছে। যেখানে পুলিশ তদন্ত করতে গেলে উন্মাদীরা ভিড় জমা করে পুলিশকে চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে আক্রমন শুরু করে দেয়।

 

ঘটনাটি আহমেদাবাদের গোমতী পুর এলাকায় ঘটিত হয়েছে। পুলিশ সেখানে কাউকে গ্রেফতার করতে যায়নি বরং লিস্ট তৈরি করতে গেছিল যাতে সংক্রমিতদের চিহ্নিত করে তাদের চিকিৎসা করা যায়। কিন্ত উন্মাদীরা দেশকে বিপদে ফেলার পুরো।ষড়যন্ত্র করে ফেলেছে যার কারণে পুলিশ, প্রশাসন, চিকিৎসক কারোর কথা না শুনে দেশজুড়ে উন্মাদে মেতেছে।

Back to top button
Close