আন্তর্জাতিকনতুন খবর

‘মহাবিনাশ হবে”, চিনকে সরাসরি হুমকি তাইওয়ানের! ঘুম উড়ল বেজিংয়ের

নয়া দিল্লিঃ চিন (China) আর তাইওয়ানের (Taiwan) মধ্যে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। ১ অক্টোবরের দিন চিন নিজেদের রাষ্ট্রীয় দিবস পালন করছিল, আর সেই সময় নিজেদের শক্তি দেখাতে পিপলস লিবারেশন আর্মি (People’s liberation army) তাইওয়ানের বায়ুসীমা অতিক্রম করে ৩৮টি যুদ্ধ বিমান নিয়ে ঢুকে যায়। এবার এই মামলায় তাইওয়ানের রাষ্ট্রপতি সাই ইং-ওয়েন (Tsai Ing-wen) কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন।

সাই চিনকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, বেজিং যদি তাইওয়ানে কবজা করে তাহলে গোটা এশিয়ায় গম্ভীর আর বিনাশকারী পরিণাম হবে। ফরেন অ্যাফেয়ার্স পত্রিকায় তাইওয়ানের রাষ্ট্রপতি লেখেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাই না, তবে নিজেদের বাঁচানোর জন্য যা করনীয়, সেটা করার জন্য তাইওয়ান কোনদিনও পিছু হটবে না।”

উল্লেখ্য, চিন যখন তাইওয়ানের উপর চরম চাপ দেওয়া শুরু করেছে, তখনই ওনার এই মন্তব্য সামনে এসেছে। তাইওয়ান নিজেদের একটি স্বাধীন ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে আখ্যা দিয়ে আসে। অন্যদিকে, চিনের মতে তাইওয়ান তাঁদেরই অংশ। চিনের রাষ্ট্রপতি জিনপিং এও বলেছেন যে, তাইওয়ানে চিনের পতাকা উড়বেই।

বলে দিই, চিনের রাষ্ট্রীয় দিবসে ৩৮টি যুদ্ধ বিমান তাইওয়ানের বায়ুসীমায় লাগাতার দু’বার প্রবেশ করে। এটা চিন দ্বারা করা এখনও পর্যন্ত সবথেকে বড় অতিক্রমণ বোলা যায়। ২০১৬ সালে তাইওয়ানের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের পর চিন ওই অঞ্চলে সৈন্য এবং আর্থিক চাপ বাড়িয়ে তুলেছে। আর এর প্রধান কারণ হল, নির্বাচনে জয়লাভ করার পর থেকেই সাই ইং-ওয়েন তাইওয়ানকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে দাবি করে আসছে। উনি এও বলেছেন যে, তাইওয়ান কোনদিনই চিনের অংশ হবে না।

লক্ষণীয় বিষয় হল, মহাশক্তি হওয়ার পরেও চিন এখনও পর্যন্ত ছোট দ্বীপ তাইওয়ানে সৈন্য হামলা করতে আপ্রেনি। চিনের থেকে মাত্র ১৮০ কিমি ডুরে থাকা তাইওয়ানের ভাষা আর তাঁদের পূর্বপুরুষরা চিনা। কিন্তু দুই দেশের রাজনৈতিক অবস্থান সম্পূর্ণ আলাদা।

Related Articles

Back to top button