আন্তর্জাতিকনতুন খবর

চাণক্য, পানিনি পাকিস্তানের সন্তান! তক্ষশীলা ছিল পাকিস্তানে! আজব দাবি পাক রাজদূতের

নয়া দিল্লীঃ ভারতকে (India) চাপে ফেলতে পাকিস্তান (Pakistan) এমন এম ষড়যন্ত্র করে যে, তার কারণে তাদেরই নাম খারাপ হয়। এবারও ঠিক এরকমই এক মামলা সামনে এলো। আর এই মামলা প্রাচীন ভারতের ঐতিহাসিক তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ের (Taxila University) সাথে যুক্ত।

প্রস্নগত, ভিয়েতনামে পাকিস্তানি রাজদূত কোমর আব্বাস খোকর প্রাচীন ভারতের ঐতিহ্য হিসেবে পরিচিত তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়কে প্রাচীন পাকিস্তানের অংশ বলে আখ্যা দেন। পাকিস্তানি রাজদূতের এরকম আজব দাবি পর ট্যুইটারে সবাই মিলে ওনার ক্লাস নেয়। যদিও, যেই অ্যাকাউন্ট থেকে ট্যুইট করা হয়, সেটি ভেরিফায়েড ছিল না। কিন্তু পাক রাজদূতের সেই ট্যুইট সোশ্যাল মিডিয়ায় দ্রুত গতিতে ভাইরাল হচ্ছে।

পাকিস্তানি রাজদূত আব্বাস ট্যুইট করে লেখেন, ‘তক্ষশীলা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছবি এটি, এই ছবি পুনরায় বানানো হয়েছে। এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রাচীন পাকিস্তানে আজ থেকে ২ হাজার ৭০০ বছর আগে ইসলামাবাদের পাশে অবস্থিত ছিল। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্বের ১৬ টি দেশের ছাত্ররা ৬৪ টি আলাদা আলাদা বিষয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করত, আর সেখানে পানিনির মতো মহান জ্ঞানীগুণী মানুষ শিক্ষা দিতেন।”

আরেকটি ট্যুইটে পাক রাজদূত এই মিথ্যে দাবির সাথে লেখেন, ‘বিশ্বের প্রথম ভাষাবিদ পানিনি আর বিশ্বের বিখ্যাত রাজনৈতিক দার্শনিক চাণক্য দুজনেই প্রাচীন পাকিস্তানের সন্তান ছিলেন।” এছাড়াও তিনি নিজের মিথ্যে দাবিকে সত্যি প্রমাণ করতে একটি ভিডিও পোস্ট করেন।

যদিও ট্যুইটারে পাক রাজদূতের এই দাবির কারণে ওনাকে বিদ্রুপের শিকার হতে হয়েছে। এক ব্যক্তি বলেন, ‘২৭০০ বছর পূর্বে না ইসলাম ছিল না পাকিস্তান, পাকিস্তানের কথা তো বাদই দিলাম। তক্ষশীলা শব্দ উর্দু ছিল না, আর পানিনি ব্রাহ্মণ ছিলেন। এই গোটা অংশ ভারতীয় উপমহাদেশের মধ্যে ছিল। আমার শুধু এটা ভেবেই হাসি পাচ্ছে যে, কীভাবে এরা নিজেদের নাগরিকদের পাগল বানায়।”

Related Articles

Back to top button