নতুন খবরভারতবর্ষ

চীনকে ঝটকা দিয়েই চলেছে ভারতীয় কোম্পানি, ভারতের আগে বেজিংকে লড়তে হবে টাটার সঙ্গে

নয়া দিল্লিঃ ভারত ও চীনের মধ্যে সম্পর্ক কয়েক বছর ধরেই খারাপ হয়ে চলছে। পূর্ব লাদাখের গালওয়ান উপত্যকার ঘটনার পর থেকে ভারত চীনকে সমস্ত দিক থেকেই হারানোর নিরন্তর চেষ্টা করে চলেছে। চীনকে অর্থনৈতিক ঝটকা দিতে ইতিমধ্যেই অনেক বিখ্যাত চীনা সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত। পাশাপাশি চীনা মোবাইল কোম্পানি VIVO যেটি ভারতের সবচেয়ে বিখ্যাত ক্রিকেট টুর্নামেন্টের স্পনসর, তাঁরা আসন্ন আইপিএল ২০২২-র আগেই নিজেদের নাম তুলে নিয়েছে।

প্রসঙ্গত, সদ্য প্রকাশিত আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সভা থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, Tata Group ভিভোর জায়গায় নতুন টাইটেল স্পন্সর হিসাবে আত্মপ্রকাশ করতে চলেছে। আসন্ন মরশুম অর্থাৎ আইপিএল ২০২২ টাটা আইপিএল নামে পরিচিত হবে। এই অধিকার হস্তান্তর করায় বিসিসিআই ৪৪০ কোটি টাকা আয় করবে। আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ব্রিজেশ প্যাটেল বলেছেন যে, ভিভো অধিকার হস্তান্তরের জন্য অনুরোধ করেছিল, যা পরিচালনা পরিষদ পাশ করেছে।

এই চুক্তির বিষয়ে বিসিসিআই সেক্রেটারি জয় শাহ বলেছেন, “আইপিএলের জন্য এটি সত্যিই একটি গুরুত্বপূর্ণ অবসর কারণ TATA গ্রুপের ১০০ বছরেরও বেশি পুরনো ঐতিহ্য রয়েছে আর টাটা ছয়টি মহাদেশ জুড়ে ১০০ টিরও বেশি দেশে কাজ করা বিশ্বব্যাপী ভারতীয় সংস্থা।” জয় শাহ আরও বলেন, “আমরা সত্যিই আনন্দিত যে ভারতের বৃহত্তম এবং সবচেয়ে বিশ্বস্ত ব্যবসায়িক গোষ্ঠী আইপিএলের বৃদ্ধির বিষয়ে বিশ্বাস করেছে এবং TATA গ্রুপের সাথে আমরা ভারতীয় ক্রিকেট এবং আইপিএলকে আরও উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করব।”

এর পাশাপাশি, TATA গ্রুপ তার ৩০০ মিলিয়ন ডলারের সেমিকন্ডাক্টর চিপ-মেকিং ইউনিট প্রকল্পের জন্য তাইওয়ান সহ শীর্ষস্থানীয় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির সাথে আলোচনা করছে বলে জানা গিয়েছে। বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড-র রিপোর্ট অনুযায়ী, TATA সেমিকন্ডাক্টর চিপের জন্য তাইওয়ান-ভিত্তিক তাইওয়ান সেমিকন্ডাক্টর ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানি (TSMC) এবং United Microelectronics Corporation (UMC) এর সাথে একটি সম্ভাব্য চুক্তিতে প্রবেশ করেছে৷ TATA গোষ্ঠী এই দুটি সংস্থার সহযোগিতায় ভারতে দেশীয় সেমিকন্ডাক্টর তৈরি করার পরিকল্পনা করছে৷

বলে দিই যে, এখন পর্যন্ত তামিলনাড়ু, কর্ণাটক এবং তেলেঙ্গানাকে প্ল্যান্টের সম্ভাব্য স্থান হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং TATA ২০২২ সালের শেষ নাগাদ এই প্ল্যান্টগুলো প্রস্তুত করার লক্ষ্য রেখেছে।  ফিচ সলিউশন মিডিয়া রিপোর্টের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে যে, তাইওয়ান ভিত্তিক TSMC এর মতো সেমিকন্ডাক্টর ফাউন্ড্রিগুলি থেকে অত্যাধুনিক সিলিকন ওয়েফার সোর্স করার পরে সেমিকন্ডাক্টর চিপগুলি একত্রিত করবে এবং পরীক্ষা করবে। অন্যদিকে, ভারত সরকার প্রোডাকশন-লিঙ্কড ইনসেনটিভ (PLI) স্কিমের মাধ্যমে সেমিকন্ডাক্টর ম্যানুফ্যাকচারিংকে উন্নীত করার পরিকল্পনা নিয়েও কাজ করছে।

শুধু তাই নয়, টাটা এবার ইলেকট্রিক বাহনের মাধ্যমেও চীনকে টেক্কা দিতে চলেছে। সস্তা এবং টেকসই ওদেখতে আকর্ষণীয় টাটার ইলেকট্রিক গাড়ির মডেল চীনের ইলেকট্রিক গাড়িগুলোকে সরাসরি টক্কর দেবে বলেই মত ওয়াকিবহাল মহলের। এছাড়াও পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক ফ্রন্টে চীনকে ধাক্কা দিতে দেশের বৃহত্তম ব্যবসায়িক গোষ্ঠী টাটা গ্রুপ তার চির প্রতিদ্বন্দ্বী তাইওয়ানের সাথে হাত মিলিয়েছে। সেই সঙ্গে চীনের ওপর বৈশ্বিক চাপ বেড়েছে এবং চীন ভেতরে ভেতরে ভাবতে শুরু করেছে যে ভারতের সঙ্গে বিবাদ করে তাঁরা সবচেয়ে বড় ভুল করেনি তো?

Related Articles

Back to top button