Press "Enter" to skip to content

চিনকে শিক্ষা দিতে স্বদেশী তেজস বিমানের স্কোয়ার্ডান অ্যাক্টিভ করলেন বায়ুসেনা প্রধান আরকেএস ভাদোরিয়া

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ চিনের (China) সাথে লাদাখ আর অন্য সীমান্তে বেড়ে চলে উত্তেজনার মধ্যে বায়ুসেনা (Indian Air Force) নিজেদের ১৮ তম স্কোয়ার্ডানকে অ্যাক্টিভ করে দিয়েছে। এর আদেশ বায়ুসেনার প্রধান আরকেএস ভাদোরিয়া (RKS Bhadauria) দিয়েছেন। উনি সুলুরে ১৮ তম স্কোয়ার্ডানে নিযুক্ত ফ্লাইং বুলেটস (তেজস লড়াকু বিমান)কে সক্রিয় থাকতে বলে দেওয়া হয়েছে।

বায়ুসেনা একটি লড়াকু বিমান তেজসকে (LCA Tejas) HAL এর থেকে কিনেছে। নভেম্বর ২০১৬ সালে বায়ুসেনা ৫০ হাজার ২৫ কোটি টাকা খরচ করে ৮৩ টি মারক-১এ কেনার মঞ্জুরি দিয়েছিল। এই চুক্তিতে অন্তিম সমঝোতা ৪০ হাজার কোটি তাকায় হয়। এর মানে ২০১৬ এর থেকে ১০ হাজার কোটি টাকা কম দামে নতুন চুক্তি হয়।

তেজস বিমান পাকিস্তান আর চিনের সংযুক্ত উৎপাদন থান্ডারবার্ডের থেকে অনেক অনেক গুল উন্নত। আন্তর্জাতিক স্তরে যখন তেজসের প্রদর্শনীর কথা বলা হয়েছিল, তখন পাকিস্তান আর চিন থান্ডারবার্ডকে প্রদর্শনী থেকে হটিয়ে নেয়। এটি বাহরিন ইন্টারন্যশানাল শো-এর। তেজস ফোর্থ জেনারেশনের বিমান। আর থান্ডারবার্ড মিগ-২১ কে উন্নত করা একটি যুদ্ধ বিমান।

তেজস হাওয়া থেকে হাওয়া আর হাওয়া থেকে জমিতে মিসাইল ফায়ার করতে সক্ষম। এই যুদ্ধ বিমানে ইজরায়েলের অ্যান্টিশিপ গাইডেড মিসাইল, গাইডেড বোমা আর রকেটও লাগানো যেতে পারে। তেজস ৪২% কার্বন ফাইবার, ৪৩% অ্যালুমিনিয়াম আর টাইটেনিয়াম দিয়ে বানানো বলেই এত হালকা।

তেজস সিঙ্গেল সিটার পাইলটের যুদ্ধ বিমান। তেজস ৫৪ হাজার ফুট উচ্চতা পর্যন্ত উড়তে সক্ষম। LCA তেজসকে বিকশিত করতে মোট সাত হাজার কোটি টাকা খরচ করা হয়েছে।