নতুন খবরপশ্চিমবঙ্গ

তৃণমূল বিধায়কের মদ খেয়ে বেয়াদপি করার ভিডিও ভাইরাল

বাকুড়াঃ তৃণমূলের (All India Trinamool Congress) টিকিটে লড়ে বাঁকুড়া জেলার রায়পুরের বিধায়ক হয়েছিলেন বীরেন্দ্র নাথ টুডু (Birendra Nath Tudu)। কিন্তু ভোট জয়ের পর এলাকাবাসী ওনাকে আর দেখতে পাননি। আর গতকাল রাতেই আবার হঠাত করেই উদয় হন তিনি। গ্রামবাসীরা অভিযোগ করে বলেন যে, তিনি নাকি মদ খেয়ে এলাকার পরিদর্শনে এসেছিলেন। আর সেই কারণেই ওনাকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন তাঁরা। সেই ভিডিও ভাইরাল (Video Viral) হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শুধু বিক্ষোভই না, ওনার বিরুদ্ধে অনেক কুরুচিকর মন্তব্যও করা হয়। যদিও গ্রামবাসীরাদের প্রতি একফোঁটাও রাগ দেখান নি ওই তৃণমূল বিধায়ক। উল্টে উনি হাতজোড় করে গ্রামবাসীর কাছে ক্ষমাও চেয়ে নেন। বিক্ষোভকারীরা অভিযোগ করে বলেন, বিগত চার বছর ধরে উধাও থাকার পর হঠাত উদয় তাও আবার মদ্যপ অবস্থায়। এমনকি এলাকাবাসী এও অভিযোগ করেন যে, উনি নাকি মদ্যপ অবস্থায় কাউকে ধরে মেরেছেন।

যদিও এই ভাইরাল ভিডিওর সত্যতা আমাদের পক্ষে যাচাই করা সম্ভব হয়নি। তবু ভিডিওতে শোনা কথা অনুযায়ী, গ্রামবাসীরা বলছেন যে অনেক কষ্টে এই মাওবাদী এলাকায় থাকেন তাঁরা। এমনকি ভোটের সময় মাওবাদীদের ভয় উপেক্ষা করে তৃণমূলকে ভোট দিয়েছেন এবং বীরেন্দ্র নাথকে জনপ্রতিনিধি বানিয়েছেন। কিন্তু সেই কষ্টের মর্যাদা রাখেন নি তৃণমূল বিধায়ক।

গ্রামবাসীরা এও বলেন যে, এই ভিডিও দিদি (মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী)কে পাঠাবেন। গ্রামবাসীদের বিক্ষোভে থতমত খেয়ে যান তৃণমূল বিধায়ক। উনি বিক্ষোভকারীদের ভাই বলেও ডাকেন। কিন্তু গ্রামবাসীরা ওনাকে ভাই মানতে নারাজ। ভিডিওতে এও বলতে শোনা যায় যে, বিধায়ক চুল্লু খেয়ে এসেছেন আর ওনার শরীর দিয়ে বাজে গন্ধ বেরাচ্ছে।

বাঁকুড়া জেলার রায়পুর বিধানসভার মাননীয় MLA । গত চার বছর ওনাকে দেখা যায়নি, কাল রাতে হটাৎ মদ্যপ অবস্থা

বাঁকুড়া জেলার রায়পুর বিধানসভার মাননীয় MLA বীরেন টুডু । গত চার বছর ওনাকে দেখা যায়নি, কাল রাতে হটাৎ মদ্যপ অবস্থায় গ্রামে গিয়ে বাওয়াল করে। মানুষজন ক্ষেপে গেলে পুলিশ গিয়ে ওনাকে উদ্ধার করে। 😂😂

Geplaatst door Keccha, The Knowledge Center op Zondag 7 juni 2020

গ্রামবাসীদের ক্ষোভের মুখে পরা তৃণমূল বিধায়ককে শেষে পুলিশ এসে উদ্ধার করে নিয়ে যায় বলেই ভিডিও পোস্ট কর্তার দাবি। তৃণমূল বিধায়কের এই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব ভাইরাল হচ্ছে। যদিও এই ভিডিওর সত্যতা আমাদের পক্ষে যাচাই করা সম্ভব হয়নি।

Back to top button
Close