Press "Enter" to skip to content

চিন সীমান্তে চিনুক হেলিকপ্টারের সাহায্যে বড়বড় ম্যাশিন নিয়ে যাচ্ছে ভারত

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ উত্তরাখণ্ডের জোহর উপত্যকা হিমালের সবথেকে দুর্গম স্থানের মধ্যে একটি। ওই অঞ্চলে ভারত-চিন (India, China) সীমান্তের পাশে ভারত সামরিক দিক থেকে গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার নির্মাণের কাজ দূত গতিতে চালাচ্ছে। এই সড়ক নির্মাণে ব্যবহৃত হওয়া ম্যাশিন গুলোকে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।

BRO এর চীফ ইঞ্জিনিয়ার বিমল গোস্বামী বলেন, ২০১৯ এ অনেক চেষ্টা করার পরেও অসফল হওয়ার পর সীমান্ত সড়ক সংগঠন সম্প্রতি রাস্তা নির্মাণের জন্য ব্যবহৃত বড়বড় ম্যাশিন গুলোকে হেলিকপ্টারের সাহায্যে লাপ্সা পর্যন্ত নিয়ে যাচ্ছে। আর এই বড়সড় ম্যাশিনের সাহায্যে দ্রুত গতিতে রাস্তা নির্মাণ করা সহজ হবে।

পাথর কাটার ভারি ম্যাশিন উপলব্ধ না হওয়ার কারণে ৬৫ কিমি দীর্ঘ সড়কের নির্মাণে বিলম্ব হচ্ছিল। মুনসিয়ারি-বোগদীয়ার-মিলাম রোডের নির্মাণ হিমালয়ের জোহর ঘাঁটিতে হচ্ছে। জোহর ঘাঁটি উত্তরাখণ্ডের পিথোরাগড় জেলার মধ্যে পড়ে। এই রাস্তা ভারত-চিন সীমান্তে থাকা ভারতের শেষ পোস্টের সাথে যুক্ত হবে।

গোস্বামী বলেন, ‘গত বছর অনেকবার অসফল হওয়ার পর আমরা গত মাসে হেলিকপ্টারের সাথে ভারি ম্যাশিন গুলোকে লাপ্সাতে নিয়ে যায়। আমাদের আশা হল, এই দুর্গম এলাকায় আগামী তিন মাসের মধ্যে পাথর কাটার কাজ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।”

২২ কিমি অঞ্চলে থাকা বড় বড় পাথর গুলোকে কাটা এখন সহজ হয়ে যাবে। কারণ বড় ম্যাশিন গুলোকে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে সেখানে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। ইঞ্জিনিয়ার বলেন ‘এই প্রোজেক্টে কাজ ২০১০ এ শুরু হয়েছিল আর এর জন্য ৩২৫ কোটি টাকা ধার্য করা হয়েছিল”

উনি বলেন, এই রাস্তার নির্মাণ দুই তরফ থেকে হচ্ছে আর ২২ কিমি অংশ ছেড়ে ৪০ কিমি অংশে পাথর কাটার কাজ শেষ হয়ে গেছে।