Press "Enter" to skip to content

নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত মমতার টিম, দেখে নিন কোথায় দাঁড়াচ্ছেন সায়নী-মদনরা

শেয়ার করুন -

ভোটের দিন আর মাত্র কয়েকদিন হলেও ইতিমধ্যেই নির্বাচন নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের জনগণের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ দেখা মিলছে। শুক্রুবার দিন মমতা ব্যানার্জী তৃণমূলের পার্থী তালিকা ঘোষণা করেন। পুরোনো নতুন নেতাদের মিলিয়ে যে পার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে তা বেশ দেখার মতো।

প্রার্থী তালিকায় একদিকে যেমন প্রভাবশালী নেতাদের নাম দেখা গেছে, তেমনি সদ্য যোগদানকারী তারকাদের নামও দেখা গেছে। সবকিছু মিলিয়ে মমতা ব্যানার্জী নিজের পুরো টিমের তালিকা ঘোষণা করে দিয়েছেন। মোট ২৯৪ টি আসনের মধ্যে এবারের নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী দিচ্ছে মোট ২৯১ টি আসনে। ৩ টি আসন ছাড়া হচ্ছে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার জন্য- এমনটাই জানিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা ব্যানার্জি। যারা জিতবেন, তারা তৃণমূলের হয়ে কাজ করবেন বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

নন্দীগ্রাম থেকে মমতা ব্যানার্জী লড়বেন।
কামারহাটির প্রার্থী হচ্ছেন মদন মিত্র।
আসানসোল দক্ষিণে থাকছে সায়নি ঘোষ।
রাজ চক্রবর্তী দাঁড়াচ্ছেন ব্যারাকপুরে।
কাঞ্চন মল্লিক লড়বেন উত্তরপাড়ার হয়ে।
সোহম চক্রবর্তী দাঁড়াচ্ছেন চণ্ডীপুরে।

ফিরহাদ হাকিম প্রার্থী হচ্ছেন কলকাতা পোর্টে।
পার্থ চট্টোপাধ্যায় থাকছেন বেহালা পশ্চিমে।
বারাসতের প্রার্থী চিরঞ্জিৎ।

বিবেক গুপ্তা হচ্ছেন জোড়াসোঁকোর প্রার্থী।

রাজারহাটে দাঁড়াবেন সঙ্গীত শিল্পী অদিতি মুন্সি।

রাসবিহারীর প্রার্থী হচ্ছেন দেবাশিষ কুমার।

তাপস বন্দ্যোপাধ্যায় থাকছেন রানীগঞ্জের প্রার্থী।
শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় প্রার্থী হচ্ছেন ভবানীপুরের।

মনোজ তিওয়ারি হচ্ছেন শিবপুরের প্রার্থী।

বাঁকুড়ার প্রার্থী হচ্ছেন সায়ন্তিকা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী থাকছেন মন্তেশ্বরের প্রার্থী।

ঝাড়গ্রামে দাঁড়াচ্ছেন বীরবাহা হাঁসদা।

অতীন ঘোষ হচ্ছেন বেলগাছিয়ার প্রার্থী।

সোনারপুর দক্ষিণে থাকছেন লাভলি মৈত্র।

ওমপ্রকাশ মিশ্র লড়বেন শিলিগুড়ির হয়ে।

কল্যাণ ঘোষ থাকছেন ডোমজুরে।

চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য প্রার্থী হচ্ছেন দমদম উত্তরে।

সিঙ্গুরের প্রার্থী বেচারাম মান্না।

হুমায়ুন কবীর থাকছেন ডেবরায়।

সৌরভ চক্রবর্তী লড়বেন আলিপুরদুয়ারের হয়ে।

মিতালী রায় হচ্ছেন ধুপগুড়ির প্রার্থী।

রানা চট্টোপাধ্যায় থাকছেন বালিতে।

কৃষ্ণনগর উত্তরে থাকছেন কৌশানি।

যাদবপুরের প্রার্থী হচ্ছেন দেবব্রত মজুমদার।

সোহম চক্রবর্তী দাঁড়াচ্ছেন চণ্ডীপুরে।

গৌতম দেব হচ্ছেন ফুলবাড়ীর প্রার্থী।

গৌতম পাল লড়বেন করণদিঘির হয়ে।

তপন দেব সিনহা কালিয়াগঞ্জের প্রার্থী।

হাবড়ার প্রার্থী হচ্ছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

নোয়াপাড়ায় দাঁড়াচ্ছেন অঞ্জু বসু।

রাজারহাট নিউটাউনে দাঁড়াচ্ছেন তাপস চ্যাটার্জি।

ইংলিশবাজারের প্রার্থী কৃষ্ণ নারায়ন চৌধুরী।

চাকদায় থাকছেন শুভঙ্কর সিংহ।

টালিগঞ্জের প্রার্থী অরূপ বিশ্বাস।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় থাকছেন বেহালা পশ্চিমে।

ফিরহাদ হাকিম প্রার্থী হচ্ছেন কলকাতা পোর্টে।

বিদেশ বসু হচ্ছেন উলুবেড়িয়ার প্রার্থী।

উদয়ন গুহ থাকছেন দিনহাটায়।

ফালাকাটার প্রার্থী সুভাষ রায়।

ধূপগুড়ির হয়ে লড়বেন মিতালি রায়।

জোশেপ মুণ্ডা থাকছেন নাগরাকাটায়।

মেদিনীপুরের প্রার্থী হচ্ছেন জুন মালিয়া।

শেখর দাসগুপ্ত থাকছেন বালুরঘাটে।

হাবিবপুরের প্রার্থী সরলা মণ্ডল।

জাকির হোসেন থাকছেন জঙ্গীপুরে।

বিপ্লব মিত্র লড়বেন হরিরামপুরে।

স্বর্ণ কমল সাহা লড়বেন এন্টালীর হয়ে।

সাধন পান্ডে থাকছেন মানিকতলার প্রার্থী।

দমদমের প্রার্থী হচ্ছেন ব্রাত্য বসু।

ছোটন কিস্কু থাকছেন ফাঁসিদেওয়ায়।

তাপস রায় হচ্ছেন বরাহনগরের প্রার্থী।

মন্টুরাম পাখিরা দাঁড়াচ্ছেন কাকদ্বীপে।

রেজাউল করিম হচ্ছেন ভাঙড়ের প্রার্থী।

সাওকত মোল্লা থাকছেন ক্যানিং পূর্বে।

পুরুলিয়ার প্রার্থী সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়।

সুজাতা মণ্ডল খাঁ লড়বেন আরামবাগের হয়ে।

গৌতম দেব হচ্ছেন ডাবগ্রাম ফুলবাড়ির প্রার্থী।

বেহালা পূর্বে থাকছেন রত্না চট্টোপাধ্যায়।

হাওড়া মধ্যের প্রার্থী অরূপ রায়।

গৌতম চৌধুরী থাকছেন হাওড়া উত্তরে।

উত্তরা সিং হাজরা লড়বেন গড়বেতায়।

ইন্দ্রনীল সেন থাকবেন চন্দননগরে।

অজিত মাইতি হচ্ছেন পিংলার প্রার্থী।

শিউলি সাহা দাঁড়াচ্ছেন কেশপুরের।

শ্যামল সাঁতরা হচ্ছেন সোনামুখী।

দেবপ্রসাদ বাগ হচ্ছেন কালনার প্রার্থী।

মেমারির হয়ে লড়বেন মধুসূদন চট্টোপাধ্যায়।

মন গোবিন্দ অধিকারী দাঁড়াচ্ছেন ভাতারে।

অখিল গিরি লড়বেন রামনগর।

পাণ্ডুয়ার প্রার্থী রত্না দে নাগ।

উত্তর বিনয় বর্মন হচ্ছেন কোচবিহারের প্রার্থী।