Press "Enter" to skip to content

তৃণমূলের যুব সভাপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন দলীয় সাংসদ! ফের ভাঙনের ইঙ্গিত শাসক দলে

শেয়ার করুন -

কলকাতাঃ তৃণমূলের যুব সংগঠনের সভাপতি তথা ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভাতে গেলেন না জয়নগরের তৃণমূল সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল। জনসভাতে দলীয় সাংসদের অনুপস্থিতি নিয়ে দলের অন্দরে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে। গতকাল রবিবার সভায় ভাষণ দেওয়ার সময় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এক এক করে সমস্ত বিধায়ক এবং নেতাদের নাম উল্লেখ করেন। সেই সময় স্থানীয় সাংসদের নাম উল্লেখ করলেও ওনাকে মঞ্চে দেখা যায়নি।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভার শেষে এই ঘটনার পরিপেক্ষিত দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার তৃণমূলের যুব সভাপতি তথা বিধায়ক শওকত মোল্লা বলেন, ‘জয়নগরের সাংসদ প্রতিমা মণ্ডলকে সভায় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু তিনি অসুস্থ থাকার কারণে সভায় উপস্থিত হতে পারেননি।”

আরেকদিকে শওকত মোল্লার এরকম সাফাইয়ে কার্যত স্তম্ভিত হয়ে পড়েন তৃণমূল সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল। তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমাকে তো ডাকাই হয়নি, তাহলে আমি যাব কি করে? তিনি বলেন, কিছুদিন আগে আমার জনসংযোগ কার্যালয়ে একটি চিঠি দিয়ে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল ঠিকই, কিন্তু সেই আমন্ত্রণ পত্রে বিধায়কদের উপস্থিত থাকার কথা লেখা থাকলেও কোথাও আমাকে আমন্ত্রণ করা হচ্ছে লেখা ছিল না। এমনকি দলের কেউই আমার সাথে এই সভায় উপস্থিত থাকা নিয়ে কোনও কথা বলেন নি।

এই বিষয়ে বিধায়ক শওকত মোল্লার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন সাংসদ প্রতিমা মণ্ডল। তিনি অভিযোগ করে বলেন, এটাই প্রথম না, এর আগেও কয়েকবার আমার সাথে এমন ঘটনা ঘটেছে। ২০১৬ সালে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন হওয়ার পর থেকে আমাকে এলাকার কোনও অনুষ্ঠানে আর ডাকাই হয় না। এমনকি আমাকে ছাড়াই লোকসভার নির্বাচন করানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল এ আর নতুন কিছু নয়। রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের এক গোষ্ঠীর সাথে আরেক গোষ্ঠীর কোন্দল বহুবার দেখা গিয়েছে। আর এই গোষ্ঠী কোন্দলের ফলেই অনেকে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে মেদিনীপুরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর হাত ধরে তৃণমূলের সাংসদ সুনীল মণ্ডল বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন।

সুনীল মণ্ডল বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর দাবি করেছিলেন যে, আরও কয়েকজন সাংসদ তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন। প্রসঙ্গত, আগামী ৩১ জানুয়ারি হাওড়ায় একটি জনসভা করবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। আর সেদিন অনেক তৃণমূল বিধায়ক এবং নেতা বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে বিজেপি সুত্রের খবর। আর সেই তালিকায় প্রতিমা মণ্ডলেরও নাম আছে বলে সুত্রের খবর।