Press "Enter" to skip to content

গর্ভবতী হাতিনির হত্যার মামলায় দুই অভিযুক্ত আবদুল করিম ও রিয়াজউদ্দিন পলাতক, গ্রেফতার পি উইলসন নামের অভিযুক্ত

শেয়ার করুন -

রামকৃষ্ণদেব বলেছিলেন- যত্র জীব তত্ৰ শিব। জীবের সেবা করাকে পরম ধৰ্ম বলে যুগে যুগে ভারতীয় সমাজকে শিক্ষা দিয়ে গেছেন মহাপুরুষরা। কিন্তু বর্তমানে শিক্ষার যেন আত্মধ্বংসকারী রূপ নিতে শুরু করেছে। ন্যায়, সততা, জীবপ্রেমের পবিত্র অনুভূতি সবকিছুই ধীরে ধীরে বিলুপ্তির দিকে অগ্রসর হচ্ছে।

গর্ভবতী হাতিনিকে বোমা ভরা আনারস খাইয়ে কেরলে হত্যা করা হয়েছে। যদিও মিডিয়ার একাংশ আনারসের ভেতর বাজি ছিল দাবি করে বিষয়টিকে হালকা করতে নেমে পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটিকে হালকা করে দেখিয়ে অপরাধীদের বাঁচানোর চেষ্টা চলছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

বার বার এ প্রশ্নও উঠছিল যে, ঘটনার সাথে জড়িত ব্যাক্তিদের নাম কেন সামনে আসছে না বা কেন পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না। তবে লাগাতার প্রশ্নঃ উঠায় এবং সোশ্যাল মিডিয়ার চাপে এখন প্রশাসন নড়েচড়ে বসেছে। প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী, এখন গর্ভবতী হাতিনির হত্যায় অভিযুক্ত একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

একই সাথে দুজন অভিযুক্ত পলাতক রয়েছে বলেও জানা গেছে। হাতনি হত্যায় জড়িত পি উইলসন নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদিকে আবদুল করিম ও রিয়াজউদ্দিন নামের দুজন পলায়ণ করেছে।

প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, রাজ্যের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রীর মিডিয়া উপদেষ্টা অমর প্রসাদ রেড্ডি জানিয়েছিলেন, থামিম শেখ ও আমজাদ আলী নামে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জানিয়ে দি, গর্ভবতী হাতিনির হত্যাকে কেন্দ্র করে সোশ্যাল মিডিয়ায় জনগণের দারুন আক্রোশ চোখে পড়েছিল। যার জেরে বিষয়টি কেন্দ্র সরকার অবধি পৌঁছে যায় এবং কেন্দ্র সরকার এই ইস্যুতে কেরল সরকারের থেকে রিপোর্ট চেয়েছে।