Press "Enter" to skip to content

দিল্লীকে দাঙ্গায় জ্বালাতে মেরঠ থেকে এসেছিল অস্ত্র, টাকা দিয়েছিল কংগ্রেস নেতা: স্বীকারোক্তি উমর খালিদের

শেয়ার করুন -

দেশের রাজধানী দিল্লীতে যে দাঙ্গা হয়েছিল তার চার্জশিট সামনে আসতেই এমন এমন তথ্য বেরিয়ে আসছে যা তথাকথিত সেকুলার গ্যাং এর মুখ বন্ধ করে দিয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসে উত্তরপূর্ব দিল্লীর বেশকিছু জায়গায় দাঙ্গা হয়েছিল। যা CAA, NRC এর বিরোধ কেন্দ্রিক বলে দাবি করা হয়েছিল। তবে এখন স্পষ্ট যে দাঙ্গা কেন হয়েছিল, কারা করিয়েছিল এবং কিভাবে পুরো প্ল্যানিং করা হয়েছিল।

চার্জশিটের রিপোর্ট অনুযায়ী, দিল্লী দাঙ্গা হিন্দুদের টার্গেট করে করা হয়েছিল এবং কেন্দ্র সরকারকে অস্থির করে দেওয়া ছিল দাঙ্গার মূল উদেশ্য। ২৭৪ দিন ধরে দাঙ্গার প্ল্যানিং করা হয়েছিল। চার্জশিট দাঙ্গাবাজদের স্বীকারোক্তি ও পূর্ন তদন্তের উপর নির্ভর করে তৈরি হয়েছে।

দিল্লী দাঙ্গায় অভিযুক্ত সফুরা জারগর হোয়াটসএপ গ্রুপে বিভিন্ন জায়গায় রাস্তা আটকে রাস্তার মোড়ে মোড়ে দাঙ্গা করার জন্য লাগাতার উস্কানিতে যুক্ত ছিল। দিল্লি দাঙ্গার আরেক অভিযুক্ত শেহজাদ খান এই দাঙ্গাকে পুরো দেশে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য প্ল্যানিং করছিল। এই জন্য যে জামিয়ার ছাত্রদের কাঁধে দায়িত্ব দিতেও চেয়েছিল।

দিল্লী দাঙ্গার বিষয়ে উমর খালিদ স্বীকার করেছে যে পুরো প্ল্যানিং করে মেরঠ থেকে অস্ত্রশস্ত্র আনা হয়েছিল। যাতে হিন্দুদের টার্গেট করে কেন্দ্র সরকারকে অস্থির করা যায়। দিল্লী দাঙ্গায় ৫৩ লোক মারা গেছে এবং ৬০০ জন আহত হয়েছিল। উমর খালিদ আরো স্বীকার করেছে যে উত্তরপূর্ব দিল্লিকে দাঙ্গায় জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিতে অস্ত্রের টাকা কংগ্রেস নেতা ইসরাত জাহান দিয়েছিলেন। দিল্লী দাঙ্গায় অভিযুক্ত তাবরেজ মহিলাদের বিভিন্ন জায়গায় পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্বে ছিল। যাতে মহিলারা পাথরবাজি করতে পারে এবং হিংসাকে আরো বড়ো করতে পারে।