Press "Enter" to skip to content

UP তে হিংসার সাথে জড়িত অপরাধীকে গ্রেফতার করার জন্য কলা বিক্রেতা সেজেছিলেন পুলিশকর্মী! সফল হলো মিশন।

শেয়ার করুন -

উত্তরপ্রদেশে CAA এর প্রতিবাদের নামে যে উৎপাত ঘটেছে সেটাকে আটকানোর জন্য UP পুলিশ বেশকিছু দুর্দান্ত পদ্ধতি অবলম্বন করেছিল। যার মধ্যে একটা পদ্ধতি এখন সার্বজনীক হয়েছে। আসলে UP পুলিশ উপদ্রবীদের গ্রেফতার করার জন্য ও উপদ্রবের পেছনে কে আছে দেখার জন্য নানা রকম সাজে উত্তেজনাপ্রবন এলাকায় উপস্থিত ছিল। উত্তরপ্রদেশের আগ্রায় এক কট্টরপন্থী অপরাধীকে গ্রেফতার করার জন্য এক পুলিশ কলা বিক্রেতা সেজে ঘুরছিলেন। পুলিশ কর্মী নিজের দাঁড়ি গোঁফ কেটে নিয়ে একজন অতি সাধারণ কলা বিক্রেতা সিজেছিলেন। শুধু এই নয় পুলিশ কর্মী একটা সাধারণ পোশাক পরিধান করেছিলেন যাতে কারোর নজরে না চলে আসে।

 

এখন CCTV ক্যামেরায় কলা বিক্রেতার ছবি চলে এসেছে। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আগ্রার ফিরোজবাদে 20 এবং 21 ডিসেম্বর সহিংস বিক্ষোভ হয়েছিল। এর মধ্যে দু’জন নিহতও হয়েছিল। সহিংসতার পরে অভিযুক্তদের একজন আগরার মান্টোলা এলাকায় লুকিয়ে ছিলেন। ফিরোজবাদ পুলিশ আগ্রা পুলিশকে এই ইনপুট দিয়েছে। অফিসাররা আগ্রার মান্টোলা এলাকার ইনচার্জ সুভাষ বাজার পুলিশ চৌকির দারোগা সঞ্জীব তোমারকে এই দায়িত্ব দিয়েছিলেন।

সঞ্জীব সেই অঞ্চলে অভিযুক্তদের অবস্থান জানতে কলা বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেন। তিনি সেই অঞ্চল ও রাস্তায় নিয়ে গিয়েছিলেন যেখানে অভিযুক্তদের লুকিয়ে রয়েছে বলে সন্দেহ করা হয়েছিল। ইন্সপেক্টর এর জন্য গোঁফ পরিষ্কার করলেন। এছাড়াও ফুটপাথ থেকে এমন পোশাক কিনেন যাতে কেউ সনাক্ত করতে না পারে। শেষমেষ মিশনটি সফল হয়। যে তথ্যটির প্রয়োজন ছিল তা সঠিক ছিল। পুলিশ জানায়, অভিযুক্তরা ধরা পড়েছিল। পুলিশ সূত্র জানিয়েছে যে দারোগা সঞ্জীব এই অভিযান চালাতে 5 ডজন কলা বিক্রি করেছিলেন।

যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) এর নেতৃত্বে আপাতত প্রশাসন UP তে শান্তি বজায় রেখেছে।
এখন পর্যন্ত পরিসংখ্যান অনুসারে, পুলিশ মোট 5558 জনকে আটক করেছে। এছাড়াও 925 জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ পর্যন্ত 213 টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। কানপুরের এসএসপি অনন্ত দেব জানান, একমাত্র কানপুরে ২১,৫০০ দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন থানায় ১৫ টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। বাবুপুরওয়া থানায় 5000 জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ইয়াতিমগঞ্জ থানায় চার হাজার দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শহরে ইন্টারনেট 5 দিনের জন্য বন্ধ রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে যে শান্তি বজায় রাখা হয়েছে এবং গত কয়েকদিনে সহিংসতার কোনও নতুন ঘটনা ঘটেনি। বাজারও খোলা আছে।