নতুন খবরভারতবর্ষ

আল্লাহর উপর ভরসা রাখো, মাস্কের উপর নয় বলেছিল টিকটক স্টার সামির খান, এখন হল করোনার শিকার

ভারত এখন একসাথে দুটি ভাইরাসের সাথে লড়াই করছে, এক করোনা ভাইরাস দ্বিতীয় উন্মাদী কট্টরপন্থী ভাইরাস। ভারতে হটাৎ করোনা ভাইরাস তীব্রগতিতে ছড়িয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা মূর্খ উন্মাদীরাই পালন করেছে। যার মধ্যে তাবলীগ জামাতও রয়েছে। দেশে এই প্রথমবার সমস্থ রাজনৈতিক দল রাজনীতি ভুলে দেশকে করোনা মহামারি থেকে বাঁচানোর জন্য সমস্ত শক্তি এক করে দিয়েছে। দেশের সমস্ত সংবাদ মাধ্যম জনগণকে সচেতন করার জন্য রাতদিন বিনামূল্যে প্রচার চালাচ্ছে। দেশের পুলিশকর্মীরা না চেয়েও শুধুমাত্র দেশকে করোনা থেকে বাঁচাতে লাঠিচার্জ করছে। এখন সকলের উদেশ্য একটাই, তা হল দেশকে ভাইরাস থেকে বাঁচানো। জনতাকে বার বার লকডাউন পালন করার অনুরোধ করা হয়েছে এবং বাইরে বের হলে মুখে মাস্ক ব্যাবহার করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

তবে সরকার, মিডিয়া ও প্রশাসনের সমস্ত চেষ্টায় জল ঢালতে ভিডিও বানাতে শুরু করেছে টিকটকে নিজেদের অভিনেতা মনে করা কট্টরপন্থীরা। কেও ভিডিও বানিয়ে ধর্মের নামে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং না মানার উপদেশ দিচ্ছে। কেউ কেউ আবার মাস্ক খুলে ফেলে মরার ভয় না থাকার জন্য উৎসাহ দিতে শুরু করেছে। এখন সামির খান নামের এক ব্যাক্তির করোনা পজেটিভ ধরা পড়েছে যে কিছুদিন আগে মাস্ক না ব্যাবহার করার জন্য লোকজনকে উস্কানি দিচ্ছিল।

সামির খান টিক টক ভিডিও বানিয়ে বলেছিল উপরওয়ালা (আল্লাহ) থাকতে মাস্ক ব্যাবহারের প্ৰয়োজন নেই। সামির খানের বাড়ি মধ্যপ্রদেশে এবং সে নিজেকে টিকটক স্টার বলে পরিচয় দেয়। এখন করোনা পজেটিভ ধরা পড়ার পরে সে ভিডিও বানিয়ে বলেছে- বন্ধুরা আমি আর ভিডিও বানাতে পারবো না কারণ আমার করোনা হয়েছে। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, এখন সামির খানের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েছে এবং অনেকে তা নিয়ে ব্যাঙ শুরু করেছে।

এর আগে করোনা ভাইরাসের সাথে NRC কে জুড়ে দিয়েছিল। টিকটকে ভিডিও বানিয়ে কট্টরপন্থীরা বলেছেন, যারা আমাদের নাগরিকত্ব এর প্রমান চাইছিল এবার তাদের জন্য আল্লাহর NRC লাগু হয়ে গেছে। এবার উনি সিধান্ত নেবেন যে কে বাঁচবে কে মরবে।

Back to top button
Close