নতুন খবরভারতবর্ষ

সিমেন্টের থেকে ৭গুন কম খরচে গোবর দিয়ে AC ঘর, অনবদ্য কীর্তি ভারতীয় গবেষকের

নয়া দিল্লিঃ এয়ারকন্ডিশন মেশিন আমাদের আবহাওয়ার সঙ্গে যুঝতে সাহায্য করে ঠিকই, কিন্তু একই সঙ্গে প্রচুর বায়ু দূষণের কারণ এই এসি। তবে এর থেকে বাঁচার উপায় কি? আছে কি কোন বিকল্প পদ্ধতি? হরিয়ানার বাসিন্দা ডক্টর শিবদর্শন মালিক কিন্তু দাবি করছেন তার কাছে একটি পদ্ধতি রয়েছে। তার দাবি গরুর গোবর থেকে তৈরি বৈদিক প্লাস্টার দিয়ে বাড়ি বানালে সিমেন্টের বাড়ির তুলনায় তা অনেকটা ঠান্ডা হতে পারে। শুধু তাই নয় একইসঙ্গে শীতকালে তা গরমও থাকবে।

শিবদর্শন মালিক, 2005 সাল থেকে বৈদিক প্লাস্টার শুরু করেছিলেন। দেশি গরুর গোবরে জিপসাম, গুয়ার গাম, মাটি এবং অন্যান্য বেশকিছু বস্তু মিশিয়ে এই বৈদিক প্লাস্টার তৈরি করা হয়। ডক্টর মালিকের মতে, এই প্লাস্টার সম্পূর্ণ অগ্নি বিরোধী এবং একই সঙ্গে তাপরোধীও বটে। দীর্ঘদিনের গবেষণার পর বৈদিক প্লাস্টারের আবিষ্কার করেন শিবদর্শন। বর্তমানে কলকাতা, মুম্বাই, কর্ণাটক, গুজরাট তিনশোরও বেশি বাড়ি তৈরি হয়েছে এই বৈদিক প্লাস্টার দিয়ে।

ডক্টর মালিক বলেন যে “প্রকৃতির সাথে বেঁচে থাকার মাধ্যমে আমাদের প্রকৃতিকে বাঁচাতে হবে, যেহেতু আমাদের বাড়ি থেকে গোবর লেপা বন্ধ হয়ে গিয়েছে, তাই রোগও বাড়তে শুরু করেছে৷ দেশি গোবরে সর্বাধিক প্রোটিন উপাদান থাকার কারণে, এটি বাড়ির বাতাসকে বিশুদ্ধ রাখতে কাজ করে, তাই বৈদিক প্লাস্টারে দেশি গোবর ব্যবহার করা হয়।” তাছাড়া বিশেষত গরমকালে এটি খুবই আরামদায়ক বাইরে যদি তাপমাত্রা 40 ডিগ্রিও হয়, তার দাবি এক্ষেত্রে ঘরের ভিতরে তাপমাত্রা হবে 28 থেকে 31 ডিগ্রি।

জানিয়ে রাখি দিল্লি থেকে প্রায় 70 কিলোমিটার দূরে রোহতকে বসবাসকারী ডক্টর মালিক দিল্লি আইআইটি, বিশ্বব্যাংক সহ একাধিক সংস্থায় পরামর্শদাতা হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন 1 বর্গফুট এলাকায় এই প্লাস্টার করার জন্য খরচ পড়ে মাত্র 20 থেকে 22 টাকা। তার দাবি এটি যেমন সস্তা তেমনি স্বাস্থ্যের পক্ষেও উপকারী। কারণ এটি ক্ষতিকারক জীবাণু এবং ব্যাকটেরিয়াকে ঘরে ঢোকা থেকে আটকায়।

Related Articles

Back to top button