Press "Enter" to skip to content

মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষমতা চলে গেছে, যেটুকু আছে সেটাও যাবে! ভাইরাল শাসক দলের কর্মীর ভিডিও

শেয়ার করুন -

পাটনাঃ করোনার কারণে গোটা দেশের অবস্থা শোচনীয়। বাংলার পাশের রাজ্য বিহারের স্বাস্থ্য পরিষেবা নিয়ে এই মহামারীর মধ্যে প্রশ্ন উঠছে। বিহারের হাসপাতাল গুলোর দুর্দশা প্রকাশ্যে আসছে। আর এর মধ্যে বিহারের শাসক দল JDU এর এক কর্মীর ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে। JDU-র ওই কর্মী ক্ষোভ উগরে দিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে বলছেন, ‘নীতিশ জি আপনার আধিকারিকরাই আপনাকে ডুবিয়ে ছাড়বে। হাসপাতালের ব্যবস্থা শুধরান, নাহলে দুর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতি হবে। দুর্দশা শুধরান, নাহলে আপনাকে ছাড়া হবে না।”

ভিডিওতে JDU কর্মী অবধেশ লাল চিল্লিয়ে চিল্লিয়ে বলছেন, ২০ এপ্রিল সকাল ৮ঃ৩০ থেকে ১০ঃ৩০ পর্যন্ত লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পরেও RTPCR পরীক্ষার জন্য কাগজ বানাতে পারিনি। রাগে ওই কর্মী নিজের ফর্ম আর টাকা ফেরত নিয়ে নেন। অবধেশ লাল বলেন, আমি দারভাঙা জেলার জেডিউ কার্যকারিণী সদস্য। তিনি এও বলেন যে, তিনি মধুবনীর বিস্ফি বিধানসভার পর্যবেক্ষকের দায়িত্বও পালন করেছেন। এছাড়াও দলে পিছিয়ে পড়া সম্প্রদায়ের মহাসচিবও ছিলেন তিনি।

উনি বলেন, দলের ট্রেনিংয়ে বলা হয় যে, সরকারের প্রকল্প গুলো মানুষকে অবগত করাও। কারোর যদি কোনও কাজ আটকে থাকে, তাহলে তাঁকে ডিএম-এসপি’র সঙ্গে সাক্ষাৎ করিয়ে তাঁর সমস্যার সমাধান করাও। কিন্তু যখন দলের কর্মীরই করোনার পরীক্ষা হচ্ছে না, তখন সেই পরিস্থিতিতে অন্য মানুষের কীভাবে সাহাজ্য করব? আমরা কোন মুখ নিয়ে সরকারের প্রকল্পের সুবিধা মানুষের সামনে গিয়ে বলব। ক্ষোভে ফেটে পড়ে শাসক দলের কর্মী বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রীর হাত থেকে ক্ষমতা চলে গিয়েছে। যেটুকু অবশিষ্ট আছে, সেটুকুও চলে যাবে।”

শাসক দলের ওই কর্মী জানান, বিগত কয়েকদিন ধরে তিনি সর্দি, কাশি আর জ্বরে ভুগছেন। আর সেই কারণে তিনি আরটিপিসিআর পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে গিয়েছেন। সেখানে দুই ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকেও খালি হাতে ফিরতে হয়েছে। রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার দুর্দশার করা মুখ্যমন্ত্রীর সামনে তুলে ধরার জন্য উনি এই ভিডিও বানিয়েছেন। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রী এই ভিডিও দেখুক, আর সময়ের মধ্যে আধিকারিকদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিক।