অপরাধনতুন খবর

পাথর ছুঁড়ছিল বোরখা পড়া মহিলারা! চলছিল গুলি! সেই মর্মান্তিক ভিডিও, যেখানে প্রাণ গেছিল রতন লালের

উত্তর পূর্ব দিল্লীর হিংসা নিয়ে অনেক ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। গতকাল বুধবার ৪ঠা মার্চ একটি নতুন ভিডিও সামনে এসেছে। ভিডিওতে দাঙ্গাকারিরা পুলিশের উপর লাঠি আর পাথর দিয়ে হামলা করছে দেখা যাচ্ছে। শোনা যাচ্ছে যে, এই দাঙ্গাকারিরাই দিল্লী পুলিশের হেড কনস্টেবল রতন লালের প্রাণ কেড়ে নিয়েছিল। আর এই দাঙ্গাকারিদের হাতেই ডিসিপি অমিত শর্মা গুরুতর আহত হয়েছিলেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওকে দিল্লীর চাঁদবাগের ভিডিও বলা হচ্ছে। আর এই ভিডিও ২৪ ফেব্রুয়ারি তোলা হয়েছিল বলে দাবি করা হচ্ছে। ওই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে, পুলিশে ভয় প্রথমে দাঙ্গাকারিরা পালাতে বাধ্য হয়। কিন্তু আরেকদিকে থেকে আসা একদল দাঙ্গাকারিরা পুলিশের উপর হামলা করে দেয়। ভিড়ে থাকা বোরখা পড়া মহিলারাও পুলিশের উপর হামলা করে। ঠিকভাবে শুনলে ভিডিওতে গুলি চালানোর আওয়াজও পাওয়া যাবে।

উল্লেখনীয়, এই ভিডিও সামনে আসার পরেই এসিপি অনুজ কুমার হিংসাত্মক ভিড়ের কথা বলেন। উনি বলেন, ২৪ তারিখে সকাল ১১-১২ হবে, তখন আমার, রতন লাল আর বাকি কর্মচারীদের ডিউটি চাঁদবাগ মাজার এর ৮০-১০০ মিটারের মধ্যে চিল। ২৩ তারিখ চাঁদবাগে রোড জ্যাম করা হয়েছিল, আর পুলিশ সেই জ্যাম রাতেই খুলে দেয়। ওই রাস্তাকে ক্লিয়ার রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

উনি বলেন, ওই দিন আসতে আসতে অনেক ভিড় জড় হয়ে যায়। মহিলাদের এগিয়ে রাখা হয় ভিড়ে। বজিরাবাদ রোডের কাছাকাছি এলে আমরা তাঁদের বোঝাই। কিন্তু তাঁরা আমদের কথা না শুনে এগিয়ে আসতে থাকে। এসিপি বলেন, আমি ভিড়ের হিংসাত্মক চেহারা দেখে যমুনা বিহারের দিকে পালিয়ে নিজের জীবন বাঁচাই। ওঁরা আরেকটু এদিকে আসলে আমাদের আর রক্ষে ছিল না। অনেক কয়েকটি মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, আইপিএস অমিত শর্মা এই হামলায় গুরুতর জখম হন আর ওনাকে বাঁচাতে গিয়ে হেড কনস্টেবল রতন লাল শহীদ হয়ে যান।

Back to top button
Close