নতুন খবরভারতবর্ষভারতীয় সেনা

বন্দুক থেকে ট্যাঙ্ক, যুদ্ধ বিমান সব তৈরি হবে ভারতেই! সাতটি প্রতিরক্ষা কোম্পানির সূচনা হল আজ

নয়া দিল্লিঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শুক্রবার সাতটি নতুন প্রতিরক্ষা কোম্পানি দেশকে (India) সমর্পণ করলেন। উনি বলেন, বিজয় দশমীর দিন এই কার্যক্রম হল, এটাই আমাদের কাছে সবথেকে শুভ সঙ্কেত। শস্ত্র পুজোর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই কার্যক্রমের শুরু হয়। উনি বলেন, আজকের দিন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি এপিজে আবদুল কালামের সাহেবেরও জন্ম জয়ন্তী। কালাম সাহেব যেভাবে নিজের জীবন শক্তিশালী ভারত নির্মাণ করার জন্য সমর্পিত করেছিলেন, সেটা আমাদের সবার কাছে প্রেরণা।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, ভারত তাঁর স্বাধীনতার ৭৫ তম বছরে প্রবেশ করেছে। যেই কাজ কয়েক দশক ধরে আটকে ছিল, এখন সেগুলো সম্পূর্ণ হচ্ছে। সাতটি নতুন কোম্পানির সূচনা দেশের সংকল্প যাত্রার অংশ। এই নির্ণয় বিগত ১৫ থেকে ২০ বছর ধরে আটকে ছিল। আমার বিশ্বাস এই সাতটি কোম্পানি আগামী দিনে ভারতের সৈন্য শক্তি বাড়াতে বড় ভূমিকা পালন করবে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, আমাদের অর্ডিন্যান্স কোম্পানি বিশ্বের শক্তিশালী কারখানার মধ্যে নাম তুলেছে। এদের কাছে অনেক অভিজ্ঞতা রয়েছে। বিশ্বযুদ্ধের সময় এদের ক্ষমতা গোটা বিশ্ব দেখেছে। স্বাধীনতার পর এই কারখানাগুলোকে উন্নত করার দরকার ছিল, কিন্তু প্রাক্তন সরকার এসব দিকে নজর দেয়নি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ভারত সামরিক প্রয়োজনের জন্য বিদেশের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। আর সেই পরিস্থিতিগুলোর পরিবর্তন আনার জন্য এই কোম্পানিগুলো বড় ভূমিকা অর্জন করবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আত্মনির্ভর ভারত অভিযানের মাধ্যমে দেশের লক্ষ্য ভারত নিজের দমে বিশ্বের সবথেকে বড় সৈন্য শক্তি হওয়ার। উনি বলেন, বিগত ৭ বছরে দেশ ‘মেক ইন ইন্ডিয়া”র মন্ত্রর সঙ্গে সঙ্কল্প করে এগিয়ে চলার কাজ করেছে। দেশ স্বাধীনের পর প্রথমবার আমাদের ডিফেন্স সেক্টরে এতবড় পরিবর্তন এল।

উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আজ দেশকে যেই সাতটি প্রতিরক্ষা কোম্পানির উপহার দিলেন, সেখানে দেশের সৈন্য শক্তি বাড়ানোর কাজ চলবে। বন্দুক থেকে শুরু করে কামান, মিসাইল, হেলিকপ্টার, ফাইটার জেট সহ নানান সামরিক অস্ত্র এবং দেশকে রক্ষা করার সামগ্রী তৈরি হবে। এরফলে গোটা বিশ্ব দেখবে ভারতের শক্তি।

 

Related Articles

Back to top button