Press "Enter" to skip to content

জেলে বসে বসে মাসকাবারী টাকা পাচ্ছিল আজম খান, এক ঝটকায় সব বন্ধ করে দিল যোগী সরকার

শেয়ার করুন -

রামপুরঃ সমাজবাদী পার্টির (SP) সাংসদ আজম খানকে উত্তর প্রদেশের যোগী সরকার আরও একটি বড়সড় ঝটকা দিল। যোগী সরকার আজম খানের প্রাপ্য গণতান্ত্রিক যোদ্ধা পেনশন রদ করে দিয়েছে। এই সিদ্ধান্ত আজম খানের বিরুদ্ধে দায়ের মামলা গুলোকে দেখে নেওয়া হয়েছে। বলে রাখি, আজম খান প্রথমে ৫০০ টাকা প্রতি মাস পেনশন পেতেন। সেটি এখন বেড়ে ২০ হাজার টাকা প্রতি মাস হয়ে গিয়েছিল।

২০০৫ সালে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মুলায়ম সিং যাদব ১৯৭৫ সালে এমার্জেন্সির সময় জেলে যাওয়া নেতাদের জন্য গণতন্ত্রের যোদ্ধা পেনশন স্কিম শুরু করেন। সেই স্কিম অনুযায়ী আজম খানকে পেনশন দেওয়া হত। এবার যোগী সরকার আজম খানের এই পেনশন স্কিম রদ করে দিয়েছে। আজম খানের সংসদীয় এলাকা রামপুরে ৩৭ জনকে এই প্রকল্পের আওতায় পেনশন দেওয়া হত।

এমার্জেন্সির সময় আজম খান আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সঙ্ঘের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন আর ওনাকে জেলে পাঠানো হয়েছিল। মুলায়ম সিং দ্বারা এই প্রকল্প শুরু হওয়ার সময় থেকেই আজম খান এই পেনশন পেতেন। বুধবার রামপুর জেলার গণতন্ত্রের যোদ্ধাদের নতুন তালিকা জারি করা হয়। সেখানে আজম খানের নাম ছিল না।

জেলা শাসক অঞ্জনেয় কুমার সিংহ বলেন, আমি যতদূর জানি সেটা হল, আজম খানের বিরুদ্ধে একাধিক অপরাধিক মামলা দায়ের থাকার কারণে এই পেনশন রদ করে দেওয়া হয়েছে। কিছুদিন আগে এই বিষয়ে প্রশাসনের থেকে তথ্য চাওয়া হয়েছিল। রামপুরের গণতন্ত্র যোদ্ধাদের তালিকায় এখন ৩৫ জনের নাম রয়েছে।

উল্লেখ্য, উত্তর প্রদেশের যোগী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে আজম খানের বিরুদ্ধে কড়া অ্যাকশন নেওয়া হচ্ছে। আজম খানের বিরুদ্ধে জোহর বিশ্ববিদ্যালয়ের জমিতে জবরদখল করা নিয়ে ২৬ টি মামলা দায়ের আছে। এখন আজম খানের বিরুদ্ধে মোট ৮৫ টি মামলা দায়ের আছে আর তিনি বিগত এক বছর ধরে জেলে বন্দি।