নতুন খবরভারতবর্ষ

মমতার প্রতিনিধিদের উপর চললো যোগী আদিত্যনাথের চাবুক! লখনউ বিমানবন্দরে করা হলো আটক।

স্কুলে কোনো ক্লাসের মনিটর নিযুক্ত করার জন্য শিক্ষক যখন ছাত্রদের দিকে নজর দেয় তখন উনি দুই ধরনের ছাত্র দেখতে পান। এক ধরনের ছাত্র যে সব সময় মন দিয়ে পড়াশোনা করে, প্রথম সারির বেঞ্চে বসে। দ্বিতীয় ধরনের ছাত্র যে শ্রেণীর অন্তিম বেঞ্চে বসে থেকে সবার উপর দৃষ্টি রাখে ফলাল এবং অত্যন্ত চতুর। এক্ষেত্রে শিক্ষক অনেক সময় দ্বিতীয় অপশন বেছে নেন, কারণ দ্বিতীয় ধরনের ছাত্র সব জানে যে কারা দুস্টুমি করে, কিভাবে তাদের নিয়ন্ত্রণ করা যায়। এখন উত্তরপ্রদেশে (UP) যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) সরকার দ্বিতীয় ছাত্রের মুডে রয়েছে। যোগী সরকার পুরো দেশকে দেখিয়ে দিচ্ছেন যে কিভাবে দাঙ্গাকে সামাল দিতে হয়, কিভাবে কট্টরপন্থীদের দমন করা যায়।

জানিয়ে দি, উত্তরপ্রদেশে কট্টরপন্থীরা CAA এর প্রতিবাদে সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর থেকে শুরু করে দাঙ্গা ফ্যাসাদ শুরু করেছিল। এরপর যোগী প্রশাসন একশন মুডে চলে আসে। উত্তর প্রদেশে এখনও অবধি প্রায় ১৭ জন দাঙ্গাবাজকে গুলি করে মেরে ফেলা হয়েছে। এছাড়াও যারা যারা দাঙ্গার সাথে জড়িত তাদের CCTV ক্যামেরায় চিহ্নিত করে বাড়িতে বাড়িতে নোটিস পাঠানো হচ্ছে। নোটিসে দাঙ্গাবাজদের কাউকে ১ লক্ষ ৭০ হাজার, কাউকে ৩ লক্ষ ইত্যাদি হিসেবে সরকারি ফান্ডে টাকা জমার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। কারণ তারা সেই পরিমান অর্থের সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছে। উত্তরপ্রদেশের মুজফরনগরে এখনও অবধি ৮০ টি দোকান সিজ করে দেওয়া হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী তার দলের কয়েকজনকে প্রতিনিধি হিসেবে উত্তরপ্রদেশে পাঠিয়েছেন।

মহম্মদ নাদিমুল হক, প্রতিমা মন্ডল,দীনেশ ত্রিবেদী ও আবির বিশ্বাস নামে ৪ জনকে তৃণমূল উত্তরপ্রদেশ পাঠিয়েছে। উত্তরপ্রদেশে পাঠানো হয়েছে যাতে এরা দাঙ্গা ফ্যাসাদে গুলি খেয়ে মৃত পরিবারের সাথে দেখা করতে পারেন। কিন্তু যোগী প্রশাসন এই প্রতিনিধি মণ্ডলকে লক্ষণউ বিমান বন্দরেই আটকে দিয়েছে বলে খবর সামনে এসেছে। তৃণমূলের লোকজন রাজ্যে ঢুকলে অশান্তি , দাঙ্গা আরো বেড়ে যাবে বলে দাবি করেছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ।

এখন তৃণমূলের প্রতিনিধিরা পুলিশ এর সাথে জোর করে রাজ্য প্রবেশ করার চেষ্টা করলে কি হতে পারে তা সকলেই অনুমান করতে পারছে। খুব কম হলেও জেলে ঢুকিয়ে মতো ঘটনা ঘটার শঙ্কা রয়েছে। পুরো প্রদেশ জুড়ে ধারা ১৪৪ লাগু ও ইন্টারনেট পরিষেবা ডাউন থাকায় তৃণমূলের প্রতিনিধিরা বেশিকিছু তথ্য প্রেরণ করতে পারেনি। তবে তারা বিমান বন্দরের মেঝেতে বসে ধর্ণা দিচ্ছে বলে সূত্রের দাবি।

Back to top button
Close