Press "Enter" to skip to content

শিয়াচেনের দুর্গম এলাকায় বরফে চাপা পড়ে শহীদ জওয়ান, শেষবার ছুঁয়েও দেখতে পারল না অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী

শেয়ার করুন -

সোলেনঃ হিমাচল প্রদেশের সোলেন জেলার সুবাথুর এক জওয়ান সিয়াচেনের গ্লেসিয়ারে শহীদ হন। ৩ ডিসেম্বর খারাব আবহাওয়ার কারণে নিজের পোস্টে মোতায়েন থাকার সময় আচমকাই বিলজং গুরুং বরফের খাদে পড়ে যান। সঙ্গিদের অনেক প্রচেষ্টার পর বিলজং গুরুংকে বরফের খাদ থেকে উদ্ধার করা হয়। কিন্তু ওনাকে উদ্ধার করার আগেই উনি প্রাণ ত্যাগ করেছিলেন।

গুরুংয়ের স্ত্রী ভিডিও কলের মাধ্যমে স্বামীর শেষ দর্শন করেন। জওয়ানের স্ত্রী দীপা গুরুং আট মাসের গর্ভবতী, আর তিনি এখন নিজের পরিবারের সাথে নেপালে আছেন। মংল্বার সুবাথুতে যখন শহীদ স্বামীর শেষকৃত্যের অনুষ্ঠান চলছিল, তখন ওনার স্ত্রী নেপাল থেকে ভিডিও কলের মাধ্যমে সেই অনুষ্ঠান দেখেন আর কান্নায় ভেঙে পড়েন।

শহীদ গুরুং দুই মাস আগে ছুটি নিয়ে নেপাল গিয়েছিলেন, আর সেখানে পরিজনদের সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন। ছুটির পর বিলজং ভারতে-চীন আন্তর্জাতিক সীমান্তের নজরদারীতে নিযুক্ত হন। শহীদের বাবাও নিজের ছেলের ইউনিট থেকে অবসরপ্রাপ্ত হয়ে ডিএসআই অনুযায়ী ভারতের সুরক্ষায় মোতায়েন আছেন। ওনার ভাই জিআরে দেশের সুরক্ষার জম্মুর সীমান্তে মোতায়েন।

শহীদের ভাই জওয়ান তুলসী গুরুং বলেন, দাদা স্কুলের সময় থেকেই অনেক বাহাদুর ছিল। হিমাচলের মুখ্যমন্ত্রী জয়রাম ঠাকুর জওয়ানের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ঈশ্বর প্রয়াত জওয়ানের আত্মার শান্তি দিক আর শোকগ্রস্ত পরিবারকে শক্তি দিক। আমার সমবেদনা সর্বদা তাদের সাথে থাকবে।