Press "Enter" to skip to content

মরে গিয়েও অমর! পাঁচ মুমূর্ষূর প্রাণ বাঁচিয়ে সর্বকনিষ্ঠ অঙ্গদাতার খেতাব অর্জন করল ২০ মাসের ধনিষ্ঠা

শেয়ার করুন -

নয়া দিল্লীঃ মাত্র ২০ মাস বয়স বড় কিছু করার মতো বয়স্ক নয়, কিন্তু দিল্লির রোহিনী অঞ্চলে বসবাসকারী ২০ মাস বয়সী ধনিষ্ঠ এমন একটি কাজ করল যা সবার জন্য উদাহরণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রসঙ্গত, ২০ মাসের এই দুধের শিশু পাঁচ জনে জীবন বাঁচিয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় জানিয়েছে। এর সাথে ধনিষ্ঠা সর্বকনিষ্ঠ অঙ্গ দাতা হয়ে উঠল। তাঁর হৃদয়, লিভার, দুটো কিডনি আর দুটি কর্নিয়া পাঁচ জন রোগীকে দান করা হয়েছে।

বলে রাখি, গত ৮ জানুয়ারি বিজেলে ধনিষ্ঠা বাড়ির ছাদে খেলতে খেলতে মাটিতে পড়ে যায় আর জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এরপর তাকে তৎক্ষণাৎ গঙ্গারাম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ডাক্তারদের অনেক প্রচেষ্টার পরেও তাকে বাঁচানো যায় নি। ১১ জানুয়ারি ডাক্তাররা ধনিষ্ঠার ‘ব্রেন ডেড” ঘোষণা করে। ধনিষ্ঠার ব্রেন ছাড়াও তাঁর সব অঙ্গই কাজ করছিল। শোকে কাতর হওয়ার পরেও ধনিষ্ঠার বাবা মা শ্রী আশিস কুমার এবং শ্রীমতী ববিতা তাঁদের ফুটফুটে সন্তানের অঙ্গ দান করার ইচ্ছে জাহির করেন।

ধনিষ্ঠার বাবা আশিস কুমার বলেন, ‘আমরা হাসপাতালে থাকাকালীন অনেক এমন রোগী দেখেছি যাদের অঙ্গের খুব প্রয়োজন। যেহেতু আমরা আমাদের সন্তানকে খুইয়ে দিয়েছি, সেহেতু তাঁর অঙ্গ দান করে সেসব রোগীদের বাঁচানোর ইচ্ছে প্রকাশ করি যাদের অঙ্গের খুব দরকার।

ডঃ ডি. এস রাণা জানান, ‘ধনিষ্ঠার পরিবারের এই কাজ খুবই প্রশংসনীয়। আর ওনাদের এই কাজ অনেককে অনুপ্রেরণা দেবে। ০.২৬ প্রতি মিলিয়ন হিসেবে ভারতে অঙ্গ দানের হার খুবই কম। অঙ্গের কারণে প্রতি বছর ৫ লক্ষ ভারতীয় প্রাণ হারান।”